«

»

Mar ১৭

শায়খ নাসিরুদ্দীন আলবানী সম্পর্কে কিছু কথা…

আজকাল কিছু ভাই দেখা যাচ্ছে শায়খ আলবানী সাহেবকে নিয়ে মাত্রাতিরিক্ত বাড়াবাড়ি করছেন। অনেকে তো তার নামে মাযহাব বানানোর ঘোষনাও দিয়েছেন !!! তাই বাধ্য হয়ে লিখা . . .

>>>>> 

!!!

>>>>>>

 

উক্ত ভাইদের মূলত “বুখারী শরীফ মানি” এই দাবিতেই সোচ্চার দেখা যায় বেশি। (যদিও কতটুুুকু মানেন তা গোড়ায় হাত দিলেই বুঝায় যায়) তাই শায়খ নাসিরুদ্দিন আলবানী সাহেব ইমাম বুখারী সম্পর্কে কি বলেছেন তা দিয়েই শুরু করছি . . .

ইমাম বোখারী (রহঃ) কে অমুসলিম আখ্যায়িত করা-

শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) ইমাম বোখারী (রহঃ) কে অমুসলিম আখ্যায়িত করেছেন। ইমাম বোখারী (রহঃ) বোখারী শরীফের “কিতাবুত তাফসীর” এ সূরা কাসাস এর ৮৮ নং আয়াতের যে ব্যাখ্যা করেছেন, সে সম্পর্কে নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) লিখেছেন,

ان هذا التأويل لا يقول به مؤمن مسلم وقال إن هذه التأويل هو عين التعطيل.

 

“এ ধরণের ব্যাখ্যা কোন মুমিন-মুসলমান দিতে পারে না। তিনি বলেন, এ ধরণের ব্যাখ্যা মূলতঃ কুফরী মতবাদ “তা’তীলের” অন্তর্ভূক্ত”

 

ইমাম বোখারী (রহঃ) সূরা কাসাসের ৮৮ নং আয়াতের ব্যাখ্যায় লিখেছেন,

كُلُّ شَىْءٍ هَالِكٌ إِلاَّ وَجْهَهُ إلا ملكه, ويقال: إلا ما أُريد به وجه الله

 

“আল্লাহর সত্তা ব্যতীত সব কিছুই ধ্বংস হয়ে যাবে”

এখানে তিনি “ওয়াজ্হুন” শব্দের ব্যাখ্যা করেছেন “মুলকুন” তথা আল্লাহর রাজত্ব। তখন অর্থ হবে, সবকিছু ধ্বংস হবে, তাঁর রাজত্ব ব্যতীত। অথবা “ওয়াজহুন” দ্বারা যা উদ্দেশ্য হবে, তা ব্যতীত সবকিছু ধ্বংস হয়ে যাবে।

[ফাতাওয়াশ শায়েখ আলবানী, পৃষ্ঠা-৫২৩, মাকতাবাতুত তুরাছিল ইসলামী, প্রথম প্রকাশ ১৯৯৪ইং]

 

আর ইমাম বোখারী যদি সালাফীদের নিকট অমুসলিমই হয়ে থাকে, তবে আহলে হাদীস বা সালাফীরা কিভাবে ইমাম বোখারী বর্ণিত হাদীস গ্রহণ করে?

 

হানাফী মাযহাবকে খ্রিস্টধর্মের সাথে তুলনাঃ

 

শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) হানাফী মাযহাবকে খ্রিস্টধর্মের সাথে তুলনা করে লিখেছেন,

هذا صريح في أن عيسى عليه السلام يحكم بشرعنا ويقضي بالكتاب والسنة لا بغيرهما من الانجيل أو الفقه الحنفي و نحوه

 

“এ থেকে স্পষ্ট যে, হযরত ঈসা (আঃ) আমাদের শরীয়ত অনুযায়ী ফয়সালা দিবেন এবং কিতাব ও সুন্নাহের মাধ্যমে বিচার করবেন। তিনি ইঞ্জিল, হানাফী ফিকহ কিংবা এজাতীয় অন্য কিছু দ্বারা বিচার করবেন না”

[আল্লামা মুনযীরি (রহঃ) কৃত “মুখতাসারু সহিহীল মুসলিম” এর উপর শায়েখ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) এর টিকা সংযোজন, তৃতীয় সংস্করণ, ১৯৭৭, আল-মাকতাবুল ইসলামি, পৃষ্ঠা-৫৪৮]

 

এখানে শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী খুব সহজে হানাফী মাযহাবকে খ্রিস্টধর্মের বিকৃত ইঞ্জিলের সাথে তুলনা করেছেন; অথচ তিনি এতটুকু চিন্তা করেননি যে, তাঁর নিজের পিতা একজন সুদৃঢ় হানাফী আলেম। আমরা সকলেই জানি, কেউ যদি ইঞ্জিল অনুযায়ী বিবাহ-শাদী করে, তবে ইসলামে তার বিবাহ বিশুদ্ধ হবে না।

 

শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) এর নিজের বক্তব্য অনুযায়ী তাঁর পিতা এমন একটি মতবাদের মাধ্যমে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন, যা বিকৃত ইঞ্জিলের সমগোত্রীয়। এখন তিনি যদি হানাফী মাযহাবকে বিকৃত ইঞ্জিলের সাথে তুলনা করেন, তবে আমাদের কারও আপত্তি করার পূর্বে তাঁর নিজেরই সতর্ক হওয়া উচিৎ। কেননা একথা বলার দ্বারা তার নিজের পিতা-মাতারই বিবাহ বিশুদ্ধ হয় না।

 

এছাড়া তিনি তার জীবনে দীর্ঘ একটি সময় নিজেও হানাফী ছিলেন। তাঁর জীবনীতে লেখা হয়েছে,

الحنفي (قديماً) ، ثم الإمام المجتهد بعد

[সাবাতু মুয়াল্লাফাতিল আলবানী, আব্দুল্লাহ ইবনে মুহাম্মাদ আশ্-শামরানী, পৃষ্ঠা-২, ১৬]

 

“প্রথম জীবনে হানাফী, পরবর্তী জীবনে নিজেই মুজতাহিদ ইমাম”

 

তিনি যদি হানাফী মাযহাবকে ইঞ্জিলের সমতুল্য মনে করে থাকেন, তবে তিনি প্রথম জীবনের যে সময়টাতে হানাফী ছিলেন সেসময়ে তিনি কি মুসলমান ছিলেন?

 

বর্তমান বিশ্বে ৯২.৫ ভাগ মুসলমান চার মাযহাবের কোন একটি অনুসরণ করে থাকে এবং অবশিষ্ট ৭.৫ ভাগ লোক শিয়া মতাবলম্বী। দীর্ঘ তের শ’ বছর যাবৎ মুসমিম উম্মাহ মাযহাবের অনুসরণ করে আসছে, তবে কি তিনি সব মুসলমানকে খ্রিস্টানদের মত পথভ্রষ্ট মনে করেন?

 

শায়খ আব্দুল ফাত্তাহ আবু গুদ্দাহ (রহঃ) এর প্রতি অভিশাপঃ

শায়খ আব্দুল ফাত্তাহ আবু গুদ্দাহ সম্পর্কে শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) লিখেছেন,

أشل الله يدك وقطع لسانك -يدعو على العلامة الشيخ عبد الفتاح أبي غدة-.

ويقول عنه: إنه غدة كغدة البعير

ثم يقول مستهزئا ضاحكا: أتعرفون غدة

 

“আল্লাহ তায়ালা তোমার হাত অবশ করে দিক এবং তোমার জিহ্ক্ষাকে কর্তন করুক । [কাশফুন নিকাব, পৃষ্ঠা-৫২]

তিনি আরও বলেন , সে হল উটের প্লেগ রোগের মত একটা মহামারী (গুদ্দাতুল বায়ীর)। অতঃপর তিনি হাসতে হাসতে উপহাস করে বললেন, তোমরা কি জানো, উটের প্লেগ কী?

 

ড. ইউসুফ আল-কারযাবী সম্পর্কে শায়েখের উক্তিঃ

তিনি ড. ইউসুফ আল-কারযাবী সম্পর্কে বলেছেন,

اصرف نظرك عن القرضاوي واقرضه قرضا

“তুমি ইউসুফ কারযাবী থেকে তোমার দৃষ্টি ফিরিয়ে রাখো এবং তাঁর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করো”

 

তিনি ড. ইউসুফ আল-কারযাবী সম্পর্কে আরও বলেছেন,

إن يوسف القرضاوي يفتي الناس بفتاوى مخالفة للشريعة و لهُ فلسفة خطيرة

“ইউসুফ আল-কারযাবী শরীয়ত বিরোধী ফতোয়া প্রদান করে, তার কাছে রয়েছে ভয়ঙ্কর সব দর্শন”

 

শাইখুল ইসলাম আল্লামা ইবনে তাইমিয়া (রহঃ)

হাদীসুল গদীর সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে শায়েখ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) আল্লামা ইবনে তাইমিয়া (রহঃ) সম্পর্কে লিখেছেন,

إنني رأيت شيخ الإسلام ابن تيمية ، قد ضعف الشطر الأول من الحديث ، وأما الشطر الآخر ، فزعم أنه كذب !وهذا من مبالغاته الناتجة في تقديري من تسرعه في تضعيف الأحاديث قبل أن يجمع طرقها ويدقق النظر فيها.والله المستعان

“আমি শায়খ ইবনে তাইমিয়াকে দেখেছি, তিনি হাদীসের প্রথম অংশকে দুর্বল বলেছেন এবং হাদীসের শেষ অংশকে তিনি মিথ্যা মনে করেছেন। আমার ধারণামতে “হাদীসকে যয়ীফ বলার ক্ষেত্রে এটি ইবনে তাইমিয়া (রহঃ) এর বাড়াবাড়ি, যা তাঁকে হাদীসটি যয়ীফ বলতে উদ্বুদ্ধ করেছে; অথচ তিনি হাদীস বর্ণনার বিভিন্ন পরম্পরা খতিয়ে দেখেননি। এবং এ ব্যাপারে গভীর দৃষ্টিপাত করেননি।”

[সিলসিলাতুস সহীহা, খণ্ড-৪, পৃষ্ঠা-৩৪৩-৩৪৪, হাদীস নং ১৭৫০]

 

শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী পৃথিবী বিখ্যাত অধিকাংশ মুহাদ্দিস ও ফকীহের সমালোচনা করেছেন। সালাফীরা আল্লামা ইবনে তাইমিয়া (রহঃ) আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম (রহঃ) এবং আব্দুল ওহাব নজদী (রহঃ) কে তাদের মাইলফলক মনে করে থাকে। কিন্তু শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী সমস্ত আলেমের ক্ষেত্রে সব ধরণের নিয়ম-কানুনের দেয়াল ভেঙ্গে দিয়েছেন। এবং যেখানে যেভাবে ইচ্ছা তার সমালোচনা করেছেন।

 

আল্লামা ইবনে তাইমিয়া (রহঃ) “কালিমুত তাইয়্যিব” নামক বিখ্যাত একটি কিতাব রচনা করেছেন। শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) সে কিতাবের হাদীসগুলো বিশ্লেষণ করে একটি কিতাব লিখেছেন, সহীহুল কালিমিত তাইয়্যিব। এ কিতাবে নাসীরুদ্দিন আলবানী লিখেছেন-

أنصح لكل من وقف علي هذا الكتاب ( الكلم الطيب لإبن تيمية) و غيره: أن لا يبادر إلي العمل بما فيه من الأحاديث، إلا بعد التأكيد من ثبوتها، و قد سهلنا له السبيل إلي ذلك بما علقنا عليه ، فما كان ثابتا منها عمل به …وإلا تركه، ( صحيح الكلم الطيب-ص-৪)

 

“যারা আল্লামা ইবনে তাইমিয়া (রহঃ) এর এ কিতাবটি সম্পর্কে অবগত রয়েছে, তাদেরকে নসীহত করব, এ কিতাবে যে সমস্ত হাদীস রয়েছে, সেগুলোর প্রতি তারা যেন আমল করতে অগ্রসর না হয়, যতক্ষণ না হাদীসগুলো শক্তিশালীভাবে প্রমাণিত হয়। আমি এর উপর যে টিকা সংযোজন করেছি, এর মাধ্যমে প্রত্যেকের জন্য বিষয়টি সহজ করে দিয়েছি। সুতরাং যে সমস্ত হাদীস প্রমাণিত হবে, সেগুলোর উপর আমল করা হবে, নতুবা সেটি পরিত্যাগ করা হবে”

[সহীহুল কালিমিত তাইয়্যিব, পৃষ্ঠা-৪]

 

শায়েখ নাসীরুদ্দিন আলবানীর এ কথা উল্লেখ করে আল্লামা হাবীবুর রহমান আজমী (রহঃ) লিখেছেন,

و ليس يعني الألباني بذلك إلا أنه يجب علي الناس أن يتخذوه إماما و يقلدوه تقليدا أعمي، ولا يعتمدوا علي إبن تيمية و لا علي غيره من الثقات الأثبات من المحدثين، في ثبوت الأحاديث حتي يسألوا الألباني و يرجعوا إلي تحقيقاته!

 

“অর্থাৎ নাসীরুদ্দিন আলবানীর একথা বলার দ্বারা মূল উদ্দেশ্য হল, মানুষ যেন আবশ্যকভাবে তাঁকে ইমাম বানায় এবং তাঁর অন্ধ অনুকরণ করে। এবং যতক্ষণ পর্যন্ত আলবানীকে জিজ্ঞেস না করবে এবং তার বিশ্লেষণকে গ্রহণ না করবে, ততক্ষণ পর্যন্ত আল্লামা ইবনে তাইমিয়াসহ অন্য কোন বিশ্বস্ত ও গভীর পাণ্ডিত্যের অধিকারী মুহাদ্দিসের হাদীসের উপরও নির্ভর করবে না।”

 

মূলতঃ শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী পৃথিবী বিখ্যাত অধিকাংশ মুহাদ্দিসের হাদীসের সমালোচনা করেছেন। এবং এ সমালোচনার ক্ষেত্রে তিনি হাদীসশাস্ত্রের কোন মূলনীতিরও তোয়াক্কা করেননি। বড় বড় মুহাদ্দিসগণ যে সমস্ত হাদীসকে সহীহ বলেছেন, সেগুলোকে তিনি যয়ীফ বলেছেন, আবার তারা যেটাকে যয়ীফ বলেছেন, তিনি নিজের মত প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে সেগুলোকে সহীহ বলেছেন।

 

শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী একটি হাদীসকে এক কিতাবে সহীহ বলেছেন, অন্য কোথাও সেটিকে আবার যয়ীফ বলেছেন। এ ধরণের হাদীসের সংখ্যা একটি দু’টি নয়। অসংখ্য হাদীসের ক্ষেত্রে তিনি এ ধরণের স্ববিরোধীতার আশ্রয় নিয়েছেন;

 

জালালুদ্দিন সূয়ূতী (রহঃ) সম্পর্কে শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী লিখেছেন,

فيا عجباً للسيوطي كيف لم يخجل من تسويد كتابهِ الجامع الصغير بهذا الحديث

 

“কী আণ্ডর্য! জালালুদ্দিন সূয়ূতী তাঁর জামে সগীরে কিভাবে এ হাদীস উল্লেখ করতে একটু লজ্জাবোধ করলেন না!

 

তিনি জালালুদ্দিন সূয়ূতী (রহঃ) সম্পর্কে আরও লিখেছেন-

وجعجع حولهُ السيوطي

অর্থাৎ জালালু্িদ্দন সূয়ূতী (রহঃ) হাঁক-ডাক ছেড়ে থাকেন।

[সিল-সিলাতুজ জয়িফা, খণ্ড-৪, পৃষ্ঠা-১৮৯]

 

ইমাম হাকেম, ইমাম যাহাবী এবং আল্লামা মুনযিরি (রহঃ) সম্পর্কে শায়েখের উক্তিঃ

 

শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানীর দৃষ্টিতে একটা হাদিস সহীহ নয়, অথচ অন্যান্য মুহাদ্দিস তাকে সহীহ বলায় তিনি হাদীসের বিখ্যাত তিন মুহাদ্দিস ইমাম হাকেম, ইমাম যাহাবী, ইমাম মুনযিরি (রহঃ) সম্পর্কে বলেছেন,

وقال الحاكم : " صحيح الاسناد " ! ووافقه الذهبي ! وأقره المنذري في " الترغيب " ( ৩ / ১৬৬ ) ! وكل ذلك من إهمال التحقيق ، والاستسلام للتقليد ، وإلا فكيف يمكن للمحقق أن يصحح مثل هذا ا لاسناد

 

“হাকেম বলেছেন, হাদীসটির সনদ সহীহ। ইমাম যাহাবী তাঁর সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেছেন। ইমাম মুনযিরি (রহঃ) “তারগীব ও তারহীব” নামক কিতাবে তার স্বীকৃতি দিয়েছেন। আর এটি হয়েছে, তত্ত্ব-বিশ্লেষণের প্রতি উদাসীনতা, তাকলীদের প্রতি আত্মসমর্পণ (অন্ধানুকরণ), নতুবা একজন বিশ্লেষণধর্মী আলেম কিভাবে একে সহীহ বলতে পারেন”

 

হাফেয তাজুদ্দিন সুবকী (রহঃ) সম্পর্কে শায়েখ নাসীরুদ্দিন আলবানী মন্তব্য করেছেন-

ولكنه دافع عنه بوازع من التعصب المذهبي ، لا فائدة كبرى من نقل كلامه وبيان ما فيه من التعصب. .

মাযহাব অনুসরণের গোঁড়ামি তাঁকে প্ররোচিত করেছে। তাঁর কথা উল্লেখ করে এবং তাঁর গোঁড়ামির কথা আলোচনা করে তেমন উল্লেখযোগ্য কোন উপকারিতা নেই।

[সিল-সিলাতুজ যয়িফা, খণ্ড-২, পৃষ্ঠা-২৮৫]

 

 

শায়খ হাবীবুর রহমান আজমী (রহঃ) তাঁর সম্পর্কে লিখেছেন,

 

الشيخ ناصر الدين الالباني شديد الولوع بتخطئة الحذاق من كبار علماء الاسلام ولا يحابى في ذلك أحدا كائنا من كان ، فتراه يوهم البخاري ومسلما ، ومن دونهما ، ويغلط ابن عبد البر وابن حزم والذهبي وابن حجر والصنعانى ، ويكثر من ذلك حتى يظن الجهلة والسذج من العلماء ان الالباني نبغ في هذا العصرنبوغا يندر مثله

 

“শায়েখ নাসীরুদ্দিন আলবানী পৃথিবী বিখ্যাত গভীর পাণ্ডিত্যের অধিকারী আলেমদের ভুল ধরার ব্যাপারে চরম বেপরোয়া। এ পথে তিনি কাউকেই মুক্তি দেননি। আপনি দেখবেন! সে ইমাম বোখারী (রহঃ), ইমাম মুসলিমসহ অপরাপর ইমামদের ব্যাপারে বিরূপ মন্তব্য করে। তিনি যুগশ্রেষ্ঠ আলেম ইবনে আব্দুল বার (রহঃ), ইবনে হাযাম (রহঃ), ইমাম যাহাবী (রহঃ) ইবনে হাজার আসকালানী (রহঃ), ইমাম সানআনী (রহঃ) সহ আরও অনেককে ভুল সাব্যস্ত করার চেষ্টা করেছেন। অথচ অনেক অজ্ঞ এবং সাধারণ আলেম তাঁকে বর্তমান যুগের বিরল ব্যক্তিত্ব মনে করে থাকেন।”

 

বর্তমান বিশ্বের যে সমস্ত আলেম শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানীর এসমস্ত ভ্রান্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে আলোকপাত করেছেন এবং এ সম্পর্কে কিতাব লিখেছেন তাদের কয়েকজনের নাম উল্লেখ করা হল-

১. শায়খ হাবীবুর রহমান আজমী (রহঃ)। তাঁর রচিত কিতাবের নাম-

الألباني شذوذه وأخطاؤه

২. উত্তর আফ্রিকার বিখ্যাত মুহাদ্দিস আব্দুল্লাহ আল-গুমারী (রহঃ)। তাঁর কিতাবের নাম হল-

"القول المقنع في الرد على الألباني المبتدع"

৩. শায়েখ আব্দুল আযীয গুমারী-

"بيان نكث الناكث المقعدي بتضعيف الحارث"

৪. শায়েখ মুহাম্মাদ বিন আহমাদ আল-খাজরাযী

"الألباني تطرفاته"

৫. উস্তাদ বদরুদ্দিন হাসান দিয়াব দামেশকী-

"أنوار المصابيح على ظلمات الألباني في صلاة التراويح"

৬. শামের বিখ্যাত মুহাদ্দিস আব্দুল্লাহ আল-হারারী,

التعقب الحثيث على من طعن فيما صح من الحديث

৭. শায়েখ আব্দুল্লাহ বিন বায (রহঃ)

"أينَ يضع المصلي يده في الصلاة بعد الرفع من الركوع"

৮. শায়েখ ইসমাইল বিন মুহাম্মাদ আনসারী (রহঃ)

"تصحيحُ حديث صلاة التراويح عشرين ركعة والردّ على الألباني في تضعيفه"

৯. শায়েখ আব্দুল ফাত্তাহ আবু গুদ্দাহ (রহঃ)

"كلماتٌ في كشف أباطيل وافتراءات"

১০. শায়েখ হাসান বিন আলী আস-সাক্কাফ

قاموس شتائم الألباني وألفاظه المنكرة في حق علماء الأمة وفضلائها وغيرهم

১১. শায়েখ হাসান বিন আলী আস-সাক্কাফ,

"البشارةُ والإتحاف فيما بين ابن تيمية والألباني في العقيدة من الاختلاف"

 

আমরা এখানে সামান্য কয়েকটি কিতাবের নাম উল্লেখ করেছি। শায়েখ নাসীরুদ্দিন আলবানীর ভ্রান্ত বিষয়গুলির সম্পর্কে যুগশ্রেষ্ঠ অধিকাংশ আলেম স্বতন্ত্র কিতাব লিখেছেন। “সাবাতু মুয়াল্লাফাতিল আলবানী” এর গ্রন্থকার এ ধরণের ৫৭ টি কিতাবের নাম উল্লেখ করেছেন। এ সমস্ত গ্রন্থে শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানীর ভ্রান্তিগুলো আলোচনা করা হয়েছে।

 

বিখ্যাত সালাফী আলেমদের মধ্যে যারা শায়েখ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) এর এ সমস্ত ভ্রান্ত বিষয় সম্পর্কে আলোচনা করেছেন, তাদের কয়েকজনের নাম নিচে উল্লেখ করা হল-

১. শায়েখ আব্দুল্লাহ বিন বায (রহঃ)।

২. শায়েখ হামুদ বিন আব্দুল্লাহ (রহঃ)।

৩. ড. বকর বিন আব্দুল্লাহ আবু যায়েদ।

৪. শায়েখ আব্দুল্লাহ বিন মুহাম্মাদ আদ-দাবীশ (রহঃ)

৫. সফর বিন আব্দুর রহমান।

৬. মুহাদ্দিস আব্দুল্লাহ বিন আব্দুর রহমান সা’আদ।

৭. শায়েখ আব্দুল্লাহ বিন মা’নে আল-উতাইবি।

৮. শায়েখ ফাহাদ বিন আব্দুল্লাহ আস-সুনাইদ।

৯. আবু আব্দুল্লাহ মুস্তফা আল-আদাবী।

জামেয়াতুল ইমাম মুহাম্মাদ বিন সাউদ এর দাওয়া বিভাগের প্রধান ড.আব্দুল আযীয আল-আসকার শায়েখ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) এবং তাঁর অনুসারীদের সম্পর্কে লিখেছেন,

الألباني واتباعه ليسوا سلفية

“আলবানী এবং তার অনুসারীরা মূলতঃ সালাফী নয়”

অর্থাৎ এরা সালাফী (পূর্ববর্তীদের অনুসারী) হওয়ার দাবী করে কিন্তু বাস্তবে এরা সালাফী নয়।

 

সাউদী আরবের প্রধান মুফতী আবদুল আজিজ বিন আবদুল্লাহ বিন বায এর নাছির উদ্দীন আলবানী সম্পর্কে অভিমত ঃ

(ক) خطأ ظاهر ، لم يسبقه إليه أحد فيما نعلم من أهل العلم ، وهو مخالف للأحاديث الصحيحة …. নাছির উদ্দীন আলবানী এমন প্রকাশ্য ভুল করেছেন যাহা আমাদের জানা মতে পূর্বের কোন আলেম এমনটি করেননি। তিনি আরো বলেন- আলবানী সাহেব ছহীহ হাদীস সমূহের বিরোধিতাকারী। (সূত্র: সালাসু রাসায়েল ফিসসালাত : ইবনে বাজ ১/২৮)

(খ) قد يصحِّح بعض الأحاديث ويخطئ، وقد يضعِّف ويخطئ؛ কখনো তিনি ছহীহ হাদীসকে জয়ীফ/দূর্বল বলে ভুল করেন, আবার কখনো দূর্বল হাদীসকে তিনি ছহীহ বলে ভুল করেন। (সূত্র : দরুস ইবনে বাজ : ১১/২৬, ২. মাজমুআয়ে ফতুয়া ইবনে বাজ : ২৫/৭১)

 

আলবানী সাহেবের তাহকীকের প্রকৃত অবস্থা:

১. উদা বিন হাসান উদা ৫০০ হাদীসের একটি সঙ্কলন বের করেছেন। এই কিতাবে যে ৫০০ হাদীস উল্লেখ করা হয়েছে, এগুলো মুলত: আলবানী সাহেবের তারাজু বা পূর্বের মতামত থেকে ফিরে আসার ব্যাপারে আালোচনা করা হয়েছে। অর্থাৎ আলবানী সাহেব পূর্বে একটা হাদীসকে সহীহ বলেছেন, পরে মত পরিবর্তন করে সেটাকে যয়ীফ বলেছেন। এধরনের রুজু দু'একটি হাদীসে ঘটেনি। এখানে মোট পাচ শ হাদীস উল্লেখ করা হয়েছে। এই কিতাবটি আলবানী সাহেব এর নিজস্ব ওযেস সাইট আলবানী ডট নেটে পাওয়া যায়। নিচের লিংক দেকে ডাউন লোড করুন। http://www.alalbany.net/?p=5282

 

২. আবুল হাসান মুহাম্মাদ হাসান আশ-শাযখ্র আলবানী সাহেব এর রুজু বা পূর্বের মতামত থেকে প্রত্যাবর্তনের উপর একটি সঙ্কলন বের করেছন। এখানেও ৩০০ এর বেশি হাদীসের উপর আলোচনা করা হয়েছে। এ কিতাবটি আলবানী ডট কমে পাওয়া যাবে। নিচের লিংক থেকে ডাউন লোড করুন।

http://www.alalbany.net/?p=5262

 

৩. আলবানী সাহেবের তারাজু নিয়ে লেখা আরেকটি কিতাব হলো, আত-তাম্বিহাতুল মালিহা আলা মা তারাজায়া আনহুল আল্লামা আল-আলবানী। এটি নিচের লিংক থেকে ডাউন লোড করুন। এ কিতাবেও আলবানী সাহেব এর সহীহ ও যয়ীফ বলার ক্ষেত্রে পূর্বের মত থেকে প্রত্যাবতর্ সংক্রান্ত বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে এবং আলবানী সাহেবের রুজু করা হাদীস সঙ্কলন করা হযেছে। ডাউনলোড লিংক,

http://www.alalbany.net/?p=5043

 

৪. আলবানী সাহেব পূর্বের অবস্থান থেকে ফেরার পাশাপাশি প্রচুর স্ববিরোধীতায় লিপ্ত হযেছেন। একই রাবীকে কোথাও যয়ীফ, কোথাও সহীহ বলা, একই হাদীসকে কোথাও সহীহ এবং কোথাও সহীহ বলাকে তানাকুয বা স্ববিরোধীতা বলে। আলবানী সাহেব এতো বেশি পরিমাণ স্ববিরোধীতা করেছেন যে, এ বিষয়ে তিনি অনেক সমালোচনার মুখে পড়েছেন। একজন সুস্থ ধারার মুহাদ্দিস দু'একটি হাদীসের ক্ষেত্রে এমন করতে পারেন, কিন্তু তিনি শত শত হাদীসের ক্ষেত্রে এধরণের স্ববিরোধতিা করেছেন। শায়খ হাসান বিন আলী আস-সাক্কাফ আলবানী সাহেবের এ ধরণের স্ববিরোধীতার উপর কিতাব লিখেছেন। কিতাবের নাম, তানাকুযাতুল আলবানিল ওয়াজিহাত। এটি তিন খন্ডে প্রকাশিত হয়েছে। তিন খন্ডে আলবানী সাহেবের মোট ১৩০০ স্ববিারোধী বক্তব্য উল্লেখ করা হযেছে। লেখক দাবী করেছেন, আমি আলবানী সাহেবের মোট সাত হাজার স্ববিরোধী বক্তব্য পেযেছি। এই তিন খন্ডে আমি ১৩০০ বক্তব্য প্রকাশ করেছি। বাকীগুলো তিনি আস্তে আস্তে প্রকাশ করবেন।

 

৫. শায়খ সাইদ আল মামদুহ আলবানী সাহেব এর সহীহ ও যয়ীফ এর উপর তুলনামূলক আলোচনা করে ইলমুল হাদীসের আঙ্গিকে আট শ হাদীসের ব্যাপারে আলবানী সাহেবের ভুল ধরেছেন। অথাৎ একটা হাদীস আলবানী সাহেব এর নিকট যয়ীফ, কিন্তু সেটি বাস্তবে সহীহ আবার একটি হাদীসকে তিনি সহীহ বলেছেন, বাস্তবে সেটি যয়ীফ, এজাতীয় আট শ হাদীসের উপর আলোচনা করেছেন। তিনি এর উপর, আত-তা'রীফ বিআওহামি মান কাস সামাস সুনান ইলা সহীহ ও যয়ীফ নামে ছয় খন্ডের কিতাব লিখেছেন। প্রত্যেক খণ্ডই প্রায় ৫০০ পৃ. এর উপরে।

 

৬. শায়খ হাম্মাদ বিন হাসান আল-মিসরী ৩০০ শ এর বেশি রাবীর জীবনী আলোচনা করেছেন, যাদের ব্যাপারে আলবানী সাহেব বলেছেন, তাদের কোন জীবনী কোন কিতাবে পাইনি অথবা তারা অপরিচিত, অথচ তাদের জীবনী তিনি যে কিতাব দেখেছেন তাতে বিদ্যমান রয়েছে এবং তারা পরিচিত রাবী। তিনি নাম্বার সহ প্রত্যেক রাবীর নাম ও তার সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য আলোচনা করেছেন। নিচের সাইটে তার আলোচনা গুলো পাওয়া যাবে।

http://www.ahlalhdeeth.com/vb/showthread.php?t=316200

 

আলবানীর সাহেব ভুল-ভ্রান্তি বিশ্লেষণ করে বাজারে নিয়মিত নতুন নতুন বই আসছে। এর অধিকাংশ বইয়ের লেখক আলবানী সাহব এর ছাত্র ও সালাফী ঘরানার আলেম। সুতরা এসমস্ত ভুলের ব্যাপারে অবগত না হয়ে যেসমস্ত সালাফী বন্ধুরা অন্ধভাবে, যাচাই-বাছাই ছাড়া আলবানী সাহেবের অনুসরণ করছেন, তাদেরকে অন্ধ অনুসারী ছাড়া আর কি বলা যেতে পারে?

 

অতএব, সর্বশেষ কথা হল, তাবেয়ী ইবনে সিরিন (রহঃ) বলেছেন,

إنَّ هذا العلم دين ؛ فانظروا عمَّن تأخذون دينكم

“নিশ্চয় এই ইলম দ্বীনের অন্তর্ভূক্ত। সুতরাং লক্ষ্য রেখো! কার নিকট থেকে তুমি তোমার দ্বীন গ্রহণ করছো”

২৪ comments

Skip to comment form

  1. 14
    বস

    পোস্ট দাতার সত্যবাদীতা সম্পর্কে আমার সন্দেহ হচ্ছে। আর আপনারও হবে যদি এটা পড়েন http://www.peaceinislam.com/mahir/18757/

  2. 13
    illumiati?

    এই লেখার সবগুলো উত্তর শীঘ্রই আমি প্রকাশ করতে যাচ্ছি। এরই মাঝে ৪ টা পর্ব লেখা শেষ। কাজেই অপেক্ষা করুন 

  3. 12
    সরল পথ

    যিনি লিখাটা লিখেছেন তাকে একপ্রকার মিথ্যাবাদী বলা যায় শুধু তার একটি মন্তব্যের কারণে বাকীগুলো বাদই দিলাম । দীর্ঘ তের শ’ বছর যাবৎ মুসমিম উম্মাহ মাযহাবের অনুসরণ করে আসছে, তবে কি তিনি সব মুসলমানকে খ্রিস্টানদের মত পথভ্রষ্ট মনে করেন ? 

    রাসূল (সা:) দুনিয়া থেকে চলে যাওয়ার পর হযরত আবু বকর, উমর, উসমান, আলী (রা:) কত বছর মুসলিমদের বাদশা ছিলেন তারা কি কোন মাযহাব অনুসরণ করেছেন ??? মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে ৬-৭ শত বছর পরে । 

    একমাত্র রাসূল (সা:) ছাড়া অন্য কোন ব্যক্তি নিষ্পাপ নয় এবং তাদের মতবাদও শতভাগ সঠিক নয়, ভুল মানুষই করে কিন্তু যারা শুধু ভুলগুলো উল্লেখ্য করে তর্ক করে এবং মুসলিমদের দলে উপদলে বিভক্ত করে তারাই সত্যিকার অর্থে গোমরাহ । তারা কখনই ইসলামের ভাল চায় না । 

  4. 11
    মীযান মুহাম্মদ হাসান

    যথার্ত এবং বাস্তবতা তুলে ধরেছেন ! যিনি স্বীকৃত শত মুহাদ্দিসদের বিরোধিতায় উঠে পড়ে লেগেছেন ! যার ফলাফল হলো দীন ধর্ম বিমুখতা । আর বুখারি মুসলিমকে প্রশ্নবিদ্ধ করার ২য় একটা কারণ এটাও যে, সহি কোনো ইলেম বিগত চৌদ্দশ বছরে কেউ পান নি ! সব পেয়েছেন আলবানি । এ কেমন গাঁজাখুরি কথা ? এর কোন ভিত্তি আছে কী ?

  5. 10
    mahabub

    আমাদের অনুসরন করতে হবে আল্লাহ দেয়া কোরআন আর রাসুল মুহাম্মদ (সাঃ) সঠিক হাদিস। এক মাত্র কবরবাসী রাসুল মুহাম্মদ (সাঃ) এর বক্তব্য ছাড়া অন্য করোর কথা গ্রহন করা যায় অথবা বর্জন করা যায়। আমাদের প্রাধান্য দিতে হবে আল্লাহ দেয়া কোরআন আর রাসুল মুহাম্মদ (সাঃ) সঠিক হাদিস। সব বিষয়ের সমাধান আছে আল্লাহ দেয়া কোরআন আর রাসুল মুহাম্মদ (সাঃ) সঠিক হাদিসে।

  6. 9
    নুমান

    পোস্টটি পড়ে খুবই উপকৃত হয়েছি। ধন্যবাদ আপনাকে।

  7. 8
    মুহাম্মদ হাসান

    আমি সাধারণত এই ধরনের আলোচনায় বিশেষ গুরুত্ত দেই না ব্যাক্তিগত কিছু কারনের জন্য তাই একটি লিংক পোস্ট করেছিলাম যেখানে এই পোস্টের প্রায় সবগুলো অভিযোগেরই জবাব দেওয়া হয়েছে । সময় করতে পারলে বাংলায় অনুবাদ করে পোস্ট করব ইনশাআল্লাহ কিন্তু কথা দিতে পারছিনা । এই পোস্টের লেখককে একটা প্রশ্ন করেছিলাম যার কোন জবাব তিনি দেননি ।

  8. 7
    মুহাম্মদ হাসান

    শায়খ আলবানির বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হয় সেগুলোর জবাব অনেক আগেই দেওয়া হয়েছে কিন্ত বাংলাতে সেগুলোকে অনুবাদ করা হয়েছে কিনা আমার জানা নেই ।  এখানে একটা লেখা পড়লাম ইংরেজিতে যেখানে শায়খ আলবানির বিরুদ্ধে মিথ্যাচারেরে কিছু জবাব দেওয়া হয়েছে । পড়ে দেখতে পারেন অনেক কিছু জানার আছে । তবে আমাদের মনে রাখা দরকার শায়খ আলবানিসহ যত আলেম আছেন কেউই ভুলের  ঊর্ধ্বে নয় । 

     http://www.guidance4yoursoul.net/A%20Reply%20To%20The%20Slanderous%20Book%20Of%20Falsehood%20-%20Al-Albani%20Unveiled.pdf

    1. 7.1
      সাদাত

      আপনি যেহেতু অভিযোগের জবাবগুলো সম্পর্কে জানেন, একটু কষ্ট করে এই পোস্টের লেখক যে অভিযোগগুলো করেছেন, সেগুলো আপনার ভাষায় জবাব দিন।  আপনাদের আলোচনা হতে আমরা সত্য অনুধাবণের চেষ্টা করি..

  9. 6
    সাদাত

    আবদুস সবুর ভাই,

    আপনার প্রদত্ত লিংকের বইটি পড়লাম, অত্যন্ত যৌক্তিক সমালোচনামূলক লেখা। বইটি পড়ে যা বুঝলাম,

    ১.আলবানি সাহেবের বক্তব্য অনুযায়ী ইমাম বুখারি (রহ.) মুমিন-মুসলিম হিসাবে গণ্য হন না। (নাউযুবিল্লাহ)

    ২. আলবানি সাহেব ইমাম বুখারি (রহ.)-কে অমুসলিম অ্যাখায়িত করেছেন -- সরাসরি এ কথা বলা ঠিক হবে না। কেননা, আলবানি সাহেব নুসখার পার্থক্যের ধূঁয়া তুলে দাবি করতে চেয়েছেন যে ইমাম বুখারি (রহ.) আসলে ঐ ধরণের কোন কথা বলেননি। এভাবে তিনি নিজের ফতোয়া থেকে ইমাম বুখারি(রহ.)কে মুক্ত রাখতে চেয়েছেন। যদিও ইমাম বুখারি (রহ.) কর্তৃক প্রদত্ত বক্তব্যটি কোনভাবেই অস্বীকার করার কোন সুযোগ নাই।

    এই বিষয়টি মাথায় রেখে আপনার লেখায় কিছুটা পরিশোধন করা দরকার বলে মনে করছি।

  10. 5
    মাহফুজ

    এখানে আমন্ত্রণ- "আল-কিতাবা মুফাচ্ছালান" এর অনুবাদ প্রসঙ্গে

  11. 4
    মুহাম্মদ হাসান

    আব্দুস সবুর, ভাই এমন কোন মুহাদ্দিস আছে যার কোন ভুল হয়নাই? থাকলে বলেন তাহলে তাকেই শুধু মানব ইনশাআল্লাহ ।

    1. 4.1
      আবদুস সবুর

      মুহাম্মদ হাসান ভাই, 
      প্রথমত একটা প্রশ্ন করতে চাই যে,
      কোন ব্যক্তি মুহাদ্দিস হওয়ার জন্য কি কি যোগ্যতা প্রয়োজন ?

      দ্বিতীয় কথা হল,
      ভুলের পরিমানের উপর নির্ভর করেই কিন্তু তার উপর হুকুম আসে . . .

      1. 4.1.1
        মুহাম্মদ হাসান

        @আবদুস সবুর:
        ভাই, আমি এতটা জ্ঞানীনা । মুহাদ্দিস হতে কিকি যোগ্যতা লাগে সেটা আমি জানিনা । আমার প্রশ্নের একটি সহজ উত্তর দিলে উপকার হত । আমি তরকে যেতে চাচ্ছিনা ।

      2. 4.1.2
        মুহাম্মদ হাসান

        ভাই, আমার প্রশ্নের উত্তরের অপেক্ষায় আছি । রাসুল(সঃ) ব্যাতিত আমি কোন একজন ব্যাক্তির অন্ধ অনুসরণ করিনা সুতরাং আমাকে শায়খ আলবানির অন্ধ অনুসারি মনে করে ভুল করবেন না দয়াকরে ।   

        ভুলের পরিমানের উপর নির্ভর করেই কিন্তু তার উপর হুকুম আসে . . .

        আপনার কথায় আপনি বুঝাতে চাচ্ছেন শায়খ আলবানির ভুলের পরিমাণ তার সঠিক কাজের তুলনায় অনেক বেশি । আপনি কি তার ভুল এবং সঠিক কাজের একটা তুলনামুলক তালিকা এখানে তুলে ধরতে পারবেন যাতে আমার মত অজ্ঞ লোকদের বুঝতে সুবিধা হয়? 

  12. 3
    সাদাত

    আব্দুস সবুর ভাই,

    আপনার সমালোচনামূলক লেখাটি ভালোই হয়েছে, আলবানি সাহেবের কোন ভক্ত সদালাপে থাকলে হয়তো বেশ ভালো একটা আলোচনা ও আমরা উপভোগ করবো। তবে সত্য বলতে কি,  "হানাফী মাযহাবকে খ্রিস্টধর্মের সাথে তুলনা" এই অংশটুকুর যুক্তিটা একটু দুর্বল হয়ে গেছে। আমি নিজেই ফিকহে হানাফির অনুসারি। তারপরও বলছি, ঐ অংশটুকু বাদ দিলে লেখাটা আরো দৃঢ় হবে এবং অযথা বিতর্কে সময় নষ্ট হবে না, আর আপনার লেখাটার মূল আবেদন কোথাও কমবে না।  

    1. 3.1
      আবদুস সবুর

      সাদাত ভাই, আমি শুধু সদালাপে নই (আমার জানামতে সদালাপেও আলবানী সাহেবের কিছু ভক্তি আছে) আরো বিভিন্ন জায়গায় এটি পোষ্ট করেছি। আলোচনাগুলো দেখতে পারেন। যেমন-

      http://www.onbangladesh.org/blog/blogdetail/detail/6461/asksumon/40836#.UygFDaiSz3U

      http://www.somewhereinblog.net/blog/Ochenahappy/29933199

      https://www.facebook.com/notes/ask-sumon/%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A6%96-%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%A6%E0%A7%80%E0%A6%A8-%E0%A6%86%E0%A6%B2%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%80-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A7%8D%E0%A6%AA%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A6%9B%E0%A7%81-%E0%A6%95%E0%A6%A5%E0%A6%BE-/794237163937279

  13. 2
    সাদাত

    বুখারি (রহ.) সম্পর্কে  আলবানি সাহেবের বক্তব্যটা  আরেকটু বিস্তৃতভাবে (অন্তত এক প্যারা) দিতে পারেন কি? অনেক সময় একবাক্যে পুরো ভাব বুঝা যায় না।

    1. 2.1
      ফাতমী

      @সাদাত,

      সাদাত ভাই,

      “এ থেকে স্পষ্ট যে, হযরত ঈসা (আঃ) আমাদের শরীয়ত অনুযায়ী ফয়সালা দিবেন এবং কিতাব ও সুন্নাহের মাধ্যমে বিচার করবেন। তিনি ইঞ্জিল, হানাফী ফিকহ কিংবা এজাতীয় অন্য কিছু দ্বারা বিচার করবেন না”

      [আল্লামা মুনযীরি (রহঃ) কৃত “মুখতাসারু সহিহীল মুসলিম” এর উপর শায়েখ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) এর টিকা সংযোজন, তৃতীয় সংস্করণ, ১৯৭৭, আল-মাকতাবুল ইসলামি, পৃষ্ঠা-৫৪৮]

      এখানে শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী খুব সহজে হানাফী মাযহাবকে খ্রিস্টধর্মের বিকৃত ইঞ্জিলের সাথে তুলনা করেছেন; অথচ তিনি এতটুকু চিন্তা করেননি যে, তাঁর নিজের পিতা একজন সুদৃঢ় হানাফী আলেম। আমরা সকলেই জানি, কেউ যদি ইঞ্জিল অনুযায়ী বিবাহ-শাদী করে, তবে ইসলামে তার বিবাহ বিশুদ্ধ হবে না।-আবদুস সবুর

      নিচের এই লাইনে থেকে  “এ থেকে স্পষ্ট যে, হযরত ঈসা (আঃ) আমাদের শরীয়ত অনুযায়ী ফয়সালা দিবেন এবং কিতাব ও সুন্নাহের মাধ্যমে বিচার করবেন। তিনি ইঞ্জিল, হানাফী ফিকহ কিংবা এজাতীয় অন্য কিছু দ্বারা বিচার করবেন না” কিভাবে প্রমাণ হয় হানেফী মাহজাবকে খ্রিস্টান ধর্মের সাথে তুলনা করা হয়েছে? যেহেতু ইঞ্জিল ঈসা আঃ এর উপর নাজিল হয়েছিল, তবুও তিনি কিতাব ও সুন্নাহর মাধ্যমে বিচার করবেন সেটাই বুঝানো হচ্ছে। আলবানী সাহেব আরো বুঝাচ্ছেন, ঈসাঃ হানেফী ফিকাহ এর আলোকে ফতোয়া দিবেন না। এটা তার নিজস্ব অনুসিদ্ধান্ত। কিন্তু তিনি হানেফী ফিকাহকে খ্রিস্টান ধর্মের সাথে তুলনা করছেন, সেটা কোন মতেই প্রমাননিত হয়না। লেখক এখানে না থেমে তার পিতা মাতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেছেন- যা সম্পূর্ন অগ্রহনযোগ্য।

      1. 2.1.1
        আবদুস সবুর

        ফাতমী, আপনার কমেন্টে জবাব হল,
        আলবানী সাহেব বলেছেন,

        ইঞ্জিল, হানাফী ফিকহ কিংবা এজাতীয় অন্য কিছু -- -- --

        আমরা জানি যে, ইঞ্জিল একটি বাতিল গ্রন্থ 
        এবং
        ইঞ্জিল . . .কিংবা এজাতীয় অন্য কিছু
        বুঝাচ্ছে এর এজাতীত = বাতিল অন্য কিছু
        তার মানে হল, বাতিল কিছু

        এখন কথাটা যা দাড়াল, ইঞ্জিল +হানাফী ফিকহ+এ জাতীয় কিছু = বাতিল

        তাহলে উনার বাবা-মার বিবাহ হয়েছে হানাফী ফিকহ অনুসারে

        তা আপনিই বলূন ইসলাম ব্যতীত বাতিল কোন মতবাদ দ্বারা (আমার বক্তব্য নয় আলবানী সাহেবের বক্তব্য অনুসারে) বিবাহ হলে কি বিবাহ শুদ্ধ হবে ???

        আর আমার বক্তব্য হল, উনার বাবা-মার বিবাহ সহীহ হয়েছে কারন সলফে সালেহীনদের মতে হানাফী ফিকহ বাতিল মতবাদ নয়। 
        যেমন- 
        শাইখুল হাদীস ইবনে তাইমিয়া রহ. বলেন,

        হানাফীগণ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত

        (মিনহাজুল সুন্নাহ, পৃ: ১/৩৫, মিসরী হতে প্রকাশিত)

         

    2. 2.2
      কিংশুক

       হযরত বুখারী (রা:) সম্পর্কে শায়খ আলবানী (রা:) এর বক্তব্য আমিও বিস্তারিত জানতে চাই। হযরত ঈসা(আ:) কেয়ামতের পূর্বে খলিফা হিসাবে আবির্ভূত হলেও হযরত মোহাম্মদ (সা:) এর উম্মত হিসাবে মোহাম্মদ (সা:) এর শরিয়ত অনুসরন করবেন এটা না হয় বুজা গেলো। আহলে হাদিসদের মতো আক্ষরিক অর্থে আল্লাহর হাত চোখ না মানলে আক্বিদায় সমস্যা ধরেছেন কি? এত আগের হযরত ইমাম বুখারী (রা:) সালাফী না হলে হাল আমলের শায়খ নাসিরুদ্দিন আলবানী (রা:) সালাফী হন কিভাবে? বর্তমান কালের ড: বিলাল ফিলিপ এর মতো সালাফিগণ যেভাবে না বুজেই আহলে সুন্নাহ ওয়াল জামায়াতের অনেকের আক্বিদাকে মুশরিকদের আক্বিদা বানিয়ে দেন শায়খ নাসিরুদ্দিন আলবানী (রা:) নিশ্চয় তেমন ছিলেন না।

    3. 2.3
      আবদুস সবুর

      সাদাত এবং কিংশুক ভাই,
      এই বইটা পড়ে দেখতে পারেন . . .

      http://www.mediafire.com/view/93tjwak1y1bh170/imam_bukkhari.pdf

  14. 1
    ফাতমী

    লেখাটা পুরোটাই আলবানী বিদ্দেষে ছড়ানো। সদালাপ সম্পাদক কি সদালাপকে মুক্তমনার মত কোন সাইট হিসাবে দেখতে চান? মুক্তমনারা যে স্টাইলে আক্রমন করে, ঠিক একই স্টাইলে আলবানী সাহেবকে আক্রমন করা হয়েছে। এবং এই কথাগুলি সম্পাদক সাহেব কিভাবে বিবেচনা করবেন?

    শায়খ নাসীরুদ্দিন আলবানী (রহঃ) এর নিজের বক্তব্য অনুযায়ী তাঁর পিতা এমন একটি মতবাদের মাধ্যমে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন, যা বিকৃত ইঞ্জিলের সমগোত্রীয়। এখন তিনি যদি হানাফী মাযহাবকে বিকৃত ইঞ্জিলের সাথে তুলনা করেন, তবে আমাদের কারও আপত্তি করার পূর্বে তাঁর নিজেরই সতর্ক হওয়া উচিৎ। কেননা একথা বলার দ্বারা তার নিজের পিতা-মাতারই বিবাহ বিশুদ্ধ হয় না।-আবদুস সবুর।

    1. 1.1
      আবদুস সবুর

      ফাতমী আপনি সম্পাদক সাহেবকে বিচার দিলেন,
      এই কথাগুলি সম্পাদক সাহেব কিভাবে বিবেচনা করবেন?

      কিন্তু উপরের উক্তিটি দিলেন না কেন ???

      هذا صريح في أن عيسى عليه السلام يحكم بشرعنا ويقضي بالكتاب والسنة لا بغيرهما من الانجيل أو الفقه الحنفي و نحوه

      সত্যানুসন্ধানিদের জন্য আমার এই পোষ্ট, অন্ধ অনুসারীদের জন্য নয় . . .

      পোষ্টের বাকি কথাগুলোর ব্যাপারে নিশ্চুপ কেন ???

Leave a Reply

Your email address will not be published.