«

»

May ২৬

নাস্তিকদের প্রিয় সাইট SuraLikeIt.com এবং কিছু কথা

আপনি যদি কোন নাস্তিকের সামনে কুরআনের এই চ্যালেঞ্জকে পেশ করেন যে যদি আল-কুরআন মানুষের তৈরিই হয়ে থাকে তবে এর মতো একটা সূরা তোমরা নিয়ে আস, তবে কোন না কোন চতুর নাস্তিক মুহূর্তের মধ্যে আপনার সামনে জনৈক খ্রিস্টান কর্তৃক তৈরিকৃত কিছু সূরা(!) সম্বলিত একটি সাইট পেশ করবে, যার নাম SuraLikeIt.com. আগে থেকে প্রস্তুত না থাকার কারণে আপনি প্রথমে কিছুটা হতচকিত হয়ে যাবেন। তারপর যখন ধীরে ধীরে ঐ খ্রিস্টানের বানানো সূরাগুলো পড়বেন, তখন আপনি নিশ্চিত হয়ে যাবেন- গঠনে, পঠনে বা প্রভাবে কোনভাবেই এই সূরা(!)গুলো আল-কুরআনের কোন সূরার ধারে কাছেও নয়। আপনি মুখ ফুটে এ কথা বলতে না বলতেই ঐ নাস্তিক মশাই বলে উঠবেন, “পড়তে খুব কষ্ট লাগছে বুঝি, নতুন সূরা তো- তাই আর কি! তাছাড়া ছোটবেলা থেকে কেবল কুরআন পড়ে এসেছেন তো, তাই কুরআন পড়তে সহজ লাগে, ভালো লাগে। এই সূরাগুলো কিছুদিন পড়তে থাকেন দেখবেন এগুলোও ভালো লাগবে।” এরপর আপনি হয়ত আরো কিছু বলতে চাইবেন, কিন্তু তা বলার আগেই দেখবেন নাস্তিক মশাই বলে বসেছেন, “আরে আমি তো এর মধ্যে থেকে একটা সূরা নিজে তিলাওয়াত করে রেকর্ড করে শুনেছি, কুরআনের তুলনায় কোন অংশে কম নয়। বরং আমার তো এই সূরাগুলোই আরো বেশি শ্রুতিমধুর মনে হয়েছে!”

এখন আপনি কী দিয়ে প্রমাণ করবেন যে আসলেই এই সূরা(!)গুলো আল-কুরআনের কোন একটা ছোট সূরারও সমকক্ষ হয় নাই। এখন তো আর সেই সত্যযুগ নেই। মুখ আর চাপার জোরে কারুকার্যমণ্ডিত বাক্যের সমারোহে মিথ্যাকেও এখন সত্য বানানো হচ্ছে।

যাই হোক, তারপরও জীবনের কয়েকটা ঘন্টা এই সূরা(!)গুলোর পেছনে ব্যয় করেছিলাম এটা দেখার জন্য যে সূরা(!)গুলোতে আসলে কী আছে। মানগত বা গুণগত দিক নিয়ে কোন আলোচনায় না গিয়ে আপনাদের সামনে শুধু এই ফলাফলটুকুই পেশ করছি যে এই সূরা(!)গুলো তৈরি করতে গিয়ে ঐ খ্রিস্টান শব্দগুচ্ছ/বাক্য/সম্বোধন/ধরণ-এ আল-কুরআন থেকে কতটুকু পরিমাণ ধার করেছে (যদিও তারপরও কোন দিক দিয়েই আল-কুরআনের ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে নাই)।

 

সূরা(!)র নাম আয়াত(!) নম্বর ধারকৃত শব্দগুচ্ছ/বাক্য/সম্বোধন/ধরণ কুরআনের যেখান থেকে ধার করা হয়েছে
سورة الحياة 2 هل أت_ حديث [1]
سورة الحياة 3  وإذ قال __ [2]
سورة الحياة 40 لذين آمنوا وعملوا الصالحات [3]
سورة الحياة 41 وأنتم لا تعلمون [4]
سورة الحياة 3 إن الله مع [5]
سورة الأفضال 1  يا أيها الذين آمنوا [6]
سورة الأمم 1  الله الذي خلق السماوات والأرض [7]
سورة الأمم 5 رب المشرقين ورب المغربين فبأي آلاء ربكما تكذبان [8]
سورة الأمم 7  فبأي آلاء ربكما تكذبان [9]
سورة الأمم 9  فبأي آلاء ربكما تكذبان [10]
سورة الأمم 10  كل من عليها فان [11]
سورة الأمم 12  فبأي آلاء ربكما تكذبان [12]
سورة الأمم 15  فبأي آلاء ربكما تكذبان [13]
سورة الأمم 1 خلق الإنسان [14]
سورة عرج 2  وإذ قال [15]
سورة عرج 30 جنات (ال)نعيم [16]
سورة المقاطعة 3 مثل الذين [17]
سورة المقاطعة 4 مثل الذين [18]
سورة المقاطعة 6 أولئك على __ من __هم وأولئك هم ال__حون [19]
سورة المقاطعة 26 أولئك هم المفلحون [20]
سورة النبي 2  واذكر في الكتاب [21]
سورة النبي 21  وإذ قال [22]
سورة الدعاء 1  وإذ قال [23]
سورة الدعاء 7 اغفر لنا ذنوبنا  [24]
سورة الدعاء 7 أرحم الراحمين [25]
سورة الكتاب 12  إن هو إلا [26]
سورة "المسلمون" 2 لفي ضلال بعيد [27]
سورة "المسلمون" 3 عذاب شديد [28]
سورة "المسلمون" 8 وإذ قال [29]
سورة "المسلمون" 12 جهنم وبئس المصير [30]
سورة التجسد 4  إن الشيطان كان للإنسان عدوا [31]
سورة التجسد 13  إن الذين كفروا بآيات [32]
سورة الوصايا 2  إنا أرسلناك ____ بشرا ونذير [33]
سورة الإيمان 1 واذكر في الكتاب [34]
سورة الإيمان 10 لذين آمنوا ولم يلبسوا إيمانهم [35]
سورة الإيمان 10 أولئك هم المفلحون [36]
سورة العصفور 1 الأمثال للناس لعلهم يتذكرون [37]
سورة العصفور 16 لذين آمنوا وعملوا الصالحات [38]

যেহেতু খুব বেশি সময় দিতে পারি নাই আর তার দরকারও ছিল না, কাজেই আমার এই ফলাফলই শেষ নয়, কেউ অনুসন্ধান চালালে এই লিস্ট আরো অনেক লম্বা হতে পারে। কেউ যদি এসব সূরা(!)র গুণগত মান সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আগ্রহী হন তবে এই সাইটে দেখতে পারেন, এখানে একটি সূরা(!) নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।

আমার কথা হচ্ছে-

আল-কুরআনের অনুরূপ সূরা বানানো যখন এতই সহজ তখন নাস্তিক মশাইরা নিজেরা এই উদ্যোগ না নিয়ে কোথাকার কোন্ খ্রিস্টানের বানানো সূরাকে পেশ করেন কেন?  

উক্ত খ্রিস্টানের সূরা(!)গুলো যখন এতই সুন্দর আর শ্রুতিমধুর তখন তো সেগুলো নিয়ে সারা দুনিয়ায় হুলস্থুল পড়ে যাবার কথা, দিকে দিকে সুললিত কন্ঠে এই সূরাগুলো পঠিত হবার কথা। অসংখ্য মানুষের, না হলেও অসংখ্য খ্রিস্টানের, এই সূরাগুলো মুখস্ত হয়ে যাবার কথা! চার্চে চার্চে এই সূরাগুলো চর্চিত হবার কথা। কিন্তু কৈ, তেমন তো কিছু হলো না! এই সূরা(!)গুলোর কথা তো অধিকাংশ মানুষ জানেই না। আল-কুরআনের এক একটি সূরার এক একটি আয়াতের কী অপরিসীম প্রভাব! প্রতিটি সূরা লক্ষ লক্ষ মানুষের অন্তর ধারণ করে রেখেছে, প্রতিদিন অগণিতবার সেগুলোর তিলাওয়াত হচ্ছে; ঐ খ্রিস্টানের বানানো সূরা(!)য় এসব গুণের কোন্ দিকটা বিদ্যমান আছে? কথায় বলে ‘বৃক্ষ তোমার নাম কী? ফলে পরিচয়’।

[1] 20:9,51:24,79:15,85:17,88:1

[2] 2:30, 2:54, 2:67, 2:126, 2:260, 3:42, 5:20, 5:116, 6:74, 7:164, 8:32, 14:6, 14:35, 15:28, 18:60, 31:13, 33:13, 43:26, 61:5, 61:6

[3]2:25, 2:82, 2:277, 3:57, 4:57, 4:122, 4:173, 5:9, 5:93, 7:42, 10:4, 10:9, 11:23, 13:29, 14:23, 18:30, 18:107, 19:96, 22:14, 22:23, 22:50, 22:56, 26:227, 29:7, 29:9, 29:58, 30:15, 30:45, 31:8, 32:19, 34:4, 35:7, 38:24, 38:28, 40:58, 41:8, 42:22, 42:23, 42:26, 45:21, 45:30, 47:2, 47:12, 48:29, 65:11, 84:25, 85:11, 95:6, 98:7, 103:3

[4] 2:216, 2:232, 3:66, 16:74, 24:19

[5] 2:153, 8:46, 16:128

[6] 2:104, 2:153, 2:172, 2:178, 2:183, 2:208, 2:254, 2:264, 2:267, 2:278, 2:282, 3:100, 3:102, 3:118, 3:130, 3:149, 3:156, 3:200, 4:19, 4:29, 4:43, 4:59, 4:71, 4:94, 4:135, 4:136, 4:144, 5:1, 5:2, 5:6, 5:8, 5:11, 5:35, 5:51, 5:54, 5:57, 5:87, 5:90, 5:94, 5:95, 5:101, 5:105, 5:106, 8:15, 8:20, 8:24, 8:27, 8:29, 8:45, 9:23, 9:28, 9:34, 9:38, 9:119, 9:123, 22:77, 24:21, 24:27, 24:58, 33:9, 33:41, 33:49, 33:53, 33:56, 33:69, 33:70, 47:7, 47:33, 49:1, 49:2, 49:6, 49:11, 49:12, 57:28, 58:9, 58:11, 58:12, 59:18, 60:1, 60:10, 60:13, 61:2, 61:10, 61:14, 62:9, 63:9, 64:14, 66:6, 66:8

[7] 7:54, 10:3, 14:32, 17:99, 32:4, 46:33

[8] 55:17-18

[9] 55:13, 55:16, 55:18, 55:21, 55:23, 55:25, 55:28, 55:30, 55:32, 55:34, 55:36, 55:38, 55:40, 55:42, 55:45, 55:47, 55:49, 55:51, 55:53, 55:55, 55:57, 55:59, 55:61, 55:63, 55:65, 55:67, 55:69, 55:71, 55:73, 55:75, 55:77

[10] 55:13, 55:16, 55:18, 55:21, 55:23, 55:25, 55:28, 55:30, 55:32, 55:34, 55:36, 55:38, 55:40, 55:42, 55:45, 55:47, 55:49, 55:51, 55:53, 55:55, 55:57, 55:59, 55:61, 55:63, 55:65, 55:67, 55:69, 55:71, 55:73, 55:75, 55:77

[11] 55:26

[12] 55:13, 55:16, 55:18, 55:21, 55:23, 55:25, 55:28, 55:30, 55:32, 55:34, 55:36, 55:38, 55:40, 55:42, 55:45, 55:47, 55:49, 55:51, 55:53, 55:55, 55:57, 55:59, 55:61, 55:63, 55:65, 55:67, 55:69, 55:71, 55:73, 55:75, 55:77

[13] 55:13, 55:16, 55:18, 55:21, 55:23, 55:25, 55:28, 55:30, 55:32, 55:34, 55:36, 55:38, 55:40, 55:42, 55:45, 55:47, 55:49, 55:51, 55:53, 55:55, 55:57, 55:59, 55:61, 55:63, 55:65, 55:67, 55:69, 55:71, 55:73, 55:75, 55:77

[14] 7:54, 10:3, 14:32, 17:99, 32:4, 46:33

[15] 2:30, 2:54, 2:67, 2:126, 2:260, 3:42, 5:20, 5:116, 6:74, 7:164, 8:32, 14:6, 14:35, 15:28, 18:60, 31:13, 33:13, 43:26, 61:5, 61:6

[16] 5:65, 10:9, 22:56, 31:8, 37:43, 56:12, 68:34

[17] 2:171, 2:214, 2:261, 2:265, 14:18, 29:41, 59:15, 62:5

[18] 2:171, 2:214, 2:261, 2:265, 14:18, 29:41, 59:15, 62:5

[19] 2:5, 31:5

[20] 2:5, 3:104, 7:8, 7:157, 9:88, 23:102, 24:51, 30:38, 31:5, 59:9, 64:16

[21] 19:16, 19:41, 19:51, 19:54, 19:56

[22] 2:30, 2:54, 2:67, 2:126, 2:260, 3:42, 5:20, 5:116, 6:74, 7:164, 8:32, 14:6, 14:35, 15:28, 18:60, 31:13, 33:13, 43:26, 61:5, 61:6

[23] 2:30, 2:54, 2:67, 2:126, 2:260, 3:42, 5:20, 5:116, 6:74, 7:164, 8:32, 14:6, 14:35, 15:28, 18:60, 31:13, 33:13, 43:26, 61:5, 61:6

[24] 3:16, 3:147, 3:193

[25] 3:16, 3:147, 3:193

[26] 6:90, 7:184, 12:104, 23:25, 23:38, 34:46, 36:69, 38:87, 43:59, 53:4, 81:27

[27] 42:18

[28] 3:4, 6:124, 14:2, 23:77, 34:46, 35:7, 35:10, 38:26, 42:16, 42:26, 57:20

[29] 2:30, 2:54, 2:67, 2:126, 2:260, 3:42, 5:20, 5:116, 6:74, 7:164, 8:32, 14:6, 14:35, 15:28, 18:60, 31:13, 33:13, 43:26, 61:5, 61:6

[30] 3:162, 8:16, 9:73, 66:9, 67:6

[31] 17:53

[32] 3:4

[33] 2:119, 33:45, 35:24, 48:8

[34] 19:16, 19:41, 19:51, 19:54, 19:56

[35] 6:82

[36] 2:5, 3:104, 7:8, 7:157, 9:88, 23:102, 24:51, 30:38, 31:5, 59:9, 64:16

[37] 14:25

[38] 2:25, 2:82, 2:277, 3:57, 4:57, 4:122, 4:173, 5:9, 5:93, 7:42, 10:4, 10:9, 11:23, 13:29, 14:23, 18:30, 18:107, 19:96, 22:14, 22:23, 22:50, 22:56, 26:227, 29:7, 29:9, 29:58, 30:15, 30:45, 31:8, 32:19, 34:4, 35:7, 38:24, 38:28, 40:58, 41:8, 42:22, 42:23, 42:26, 45:21, 45:30, 47:2, 47:12, 48:29, 65:11, 84:25, 85:11, 95:6, 98:7, 103:3

——————————————————————————————-

আমার প্রত্যুত্তর

৩৬ comments

Skip to comment form

  1. 25
    মাসুদ রানা

    মাসুদ রানা

    ১১/০১/২০১৬

     

    প্রিয় লেখক ভাই, আপনার সুন্দর লেখার জন্য ধন্যবাদ সাদালাপে আমি আজকেই যুক্ত হলাম, ভাই নাস্তিক হারামী দের থেকে আল্লাহ আমাদের সবাইকে হেফাজত করুন। 

  2. 24

    প্রিয় লেখক ভাই ও হাফেজ তানভীর আল্লাহ্ আপনাদের হায়াতে তৈয়বা দান করুক এবং সর্বদা সত্য প্রচারের জ্ঞান দান করুক, "আমিন"

    ভাই আমি সদালাপ এ আজকেই যুক্ত হলাম আপনার এই লেখাটি পড়ে। আল্লাহ্ 'র বাণীকে এত সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করা

    দেখে আপনার জন্য দোয়া না করে ঘুম আসলো না। তাই আমার প্রবেশ এই সাইটে।

    তবে আমাদের মুসলমানদের মনে রাখতে হবে ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম। বিশ্ব নবী তার জীবনে প্রতিটি ক্ষত্রে নাস্তিকদের সহানুভূতি  ও মহব্বতের সাথে তাদের মোকাবেলা করেছেন। "কুকুর আমাকে কামড় দিয়েছে বলেই আমিও কুকুরকে কামড় দিবো" এটা নাস্তিকদের চিন্তা। আমার নবী শিক্ষা দিয়েছে " মনে পড়ে নবীজীর রাস্তায় কাটা দেয়ার কথা" সত্য প্রকাশে আমরা পিছ পা হবোনা। তারা "মুনাফিকরা" চেষ্টা করবে আমাদের চিন্তাকে বিচলিত করতে। তাদের কথায় আমরা কান দেবনা শুধু দোয়া করবো আল্লাহ্ তাদের হেদায়েত দান করুক। মনে রাখতে হবে আল্লাহ্ হেদায়েত ছাড়া সঠিক পথে চলার সাধ্য কারো নাই।

    ধন্যবাদ

    আমার লেখায় কোন ভূল হলে সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন কারন কোন ব্লগএ এটাই আমার প্রথম লেখা। "আমিন"

  3. 23
    shipon shipon

    অনেক তথ্য জানতে পারলাম। ধন্যবাদ লেখক।

  4. 22
    মুহাম্মদ মাহমুদ হাসান আবিব

    এইসব প্রতারকদের হাত থেকে আল্লাহ্ আমাদের রক্ষা করুন

  5. 21
    Abdullah

    কুরআন, যার প্রত্যেকটা অক্ষরের মধ্যে লুকিয়ে আছে সীমাহীন অর্থ। এই জিনিসের অনুরুপ তৈরী করার চেষ্টা করার আগে পড়।
    এটা স্পষ্ট যে, কুরআনের মর্মার্থ বুঝার আগেই এই মুর্খগুলো সূরা বানানোর চেষ্টা করেছে।
    কারণ এর মর্মার্থ বুঝলে করো সাধ্য হবে না সূরা বানানোর চিন্তা করার।

  6. 20
    mahabub

    মুসলিমদের উচিত বিভ্রান্তি থেকে দূরে থাকা, এলেম (ইসলামি শরিয়তের জ্ঞান) কমলে শয়তানের সুযোগ বাড়ে। আবশ্যক পরিমাণ এলেম (ইসলামী শরীয়তের জ্ঞান) অর্জন করা প্রত্যেক মুসলমান নর ও নারীর জন্য ফরজ। কিন্তু ব্যাক্তিগতভাবে আমি মনে করি বাংলাদেশের মানুষ, বিশেষ করে তরুণ সমাজ এলেম অর্জনের খেত্রে অনেক উদাসীন।

  7. 19
    তানভীর

    @Ashraf Khan ( মিঃ ফালতু খান  )  :

    "ধরে নিচ্ছি হাফেজদের পুরা কোরান মুখস্ত ( যদি ও চ্যলেন্জ করলে লুঙ্গি থাকবে কিনা জানি না)… "

    বলি , তুই এই কথা লিখবার সময় তোর নিজের লুঙ্গিই মনে হয় ঠিক জায়গায় ছিল না ! 

    কথাবার্তা শুনে তো মনে হয় তুই শালা নাস্তিক হারামী !

    জীবনেও তো মনে হয় হাফেজদের সাথে পরিচয় হয় নাই ! তা না হলে এই ধরণের হাস্যকর উদ্ভট কথা কেউ বলতে পারে না ! এই দেশে লক্ষ লক্ষ হাফেজ আছে ! তবে ভাল হাফেজের সংখ্যা কম এটা ঠিক তবে সেই সংখ্যাও হাজার হাজার শুধু এই দেশেই !  আর সারা বিশ্বের কথা তো না বাদই দিলাম !  আমি নিজেও পারসনালী অনেককে চিনি যারা যেকোনো সময় বিনা বাধায় বিনা ভুলে সম্পূর্ণ কুরআন যেকোনো সময় মুখস্ত পড়তে পারবে ! এই দেশে এখনও অনেক হাফেজে কুরআন রয়েছে যারা আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় কয়েকশ দেশের সাথে প্রতিযোগিতা করে মেধা তালিকায় স্থান করে নিয়েছে এবং এখনও প্রতি বছর স্থান করে নিচ্ছে ! তারা যেকোনো সময় ৩০ পারা কুরআন বিনা বাধায় নির্ভুলভাবে মুখস্ত শোনাতে পারবে !

    নাস্তিকগীরী কর সেটা তোর ব্যাপার , কিন্তু মুর্খের মতন কথা বলিস কেন ? নাস্তিকদের মান সম্মান ডোবালি !

    আফসুস

  8. 18
    Asraf Khan

    ১.  ঐ শব্দগুলো  আল কোরান থেকে ধার করা  এটা কে বলল? করলে ই বা কি?

    ২. কোরানে বলা হয়েছিল সকল মানুষ  ও জ্বীনের জন্য চ্যলেন্জ। তো নাস্তিকরা যদি খ্রিস্টানদের বানানো সূরা ব্যবহার করে ও  এতে কোন ক্ষতি নাই। 

    ৩. কোরানের সুরা গুলো যে এর চেয়ে নিকৃষ্ট না কে বলল?

    ৪.আর  খ্রিস্টান চার্চে  ঐ গুলো বলা হলে ই বা কি? বলা হয়েছিল সুরা বানানোর সেটা চার্চে গাওয়া হল কি না সেটা বড় কথা না।

    ৫. ক্যটরিনা কাইফের চিকনি চামেলি  গান মানুষের মুখস্ত। ধরে নিচ্ছি হাফেজদের পুরা কোরান মুখস্ত ( যদি ও চ্যলেন্জ করলে লুঙ্গি থাকবে কিনা জানি না) বাকি মুসলমানরা কুরানের অনেক আয়াত ই মুখস্ত রাখেন না। যেমন সুরা নূরের ৩৫ নং আয়াত হয়ত অনেকের মুখস্ত নাই।  তাহলে নিশ্চয়ই চিকনি চামেলী গান কোরানের চেয়ে শ্রেষ্ঠ নাকি?

    1. 18.1
      সাদাত

      @Asraf Khan:

      ১.১  ঐ শব্দগুলো  আল কোরান থেকে ধার করা  এটা কে বলল?

      উত্তর:

      শব্দ নয়; বরং কখনো শব্দগুচ্ছ, কখনো পুরো বাক্য, কখনো সম্বোধনের পদ্ধতি, কখনো বাক্য গঠনের স্ট্রাকচার পুরোপুরি ধার করা হয়েছে। এটা কারো বলার দরকার নেই, চক্ষুষ্মান ব্যক্তিমাত্র নিজের চোখ দিয়ে দেখতে পারে।

      ১.২ করলে ই বা কি?

      উত্তর: করলে অনেক সমস্যা। একে তো এটা Plagiarism, তার ওপর চ্যালেঞ্জের শর্ত লঙ্ঘন হয়:

      তারা কি বলে? কোরআন তুমি তৈরী করেছ? তুমি বল, তবে তোমরাও অনুরূপ দশটি সূরা তৈরী করে নিয়ে আস এবং আল্লাহ ছাড়া যাকে পার ডেকে নাও, যদি তোমাদের কথা সত্য হয়ে থাকে। [১১:১৩]

       

      এখানে বলা হয়েছে আল্লাহ ছাড়া অন্যদের সাহায্য নিতে। কুরআন থেকে ধার করা হলে তো সেটা  আল্লাহর সাহায্য নেওয়াই হয়ে গেল।

       

      ২. কোরানে বলা হয়েছিল সকল মানুষ  ও জ্বীনের জন্য চ্যলেন্জ। তো নাস্তিকরা যদি খ্রিস্টানদের বানানো সূরা ব্যবহার করে ও  এতে কোন ক্ষতি নাই।

      উত্তর: খ্রিস্টানরা এ চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতেই পারে, আমরা সেটার জবাব দেবো এবং দিচ্ছি। কিন্তু নাস্তিকদের জন্য খ্রিস্টানদের গার্বেজ প্রচার করায় সমস্যা হচ্ছে- 

      এতে নাস্তিকদের অযোগ্যতা, পরনির্ভরশীলতা আরেকবার প্রকটভাবে ফুটে ওঠে। কেননা, ইসলামের বিপক্ষে নাস্তিকদের বিদ্যার দৌড় খ্রিস্টান মিশনারী পর্যন্তই।

      ৩. কোরানের সুরা গুলো যে এর চেয়ে নিকৃষ্ট না কে বলল?

      উত্তর: একটু পর পর “কে বলল” “কে বলল” করেন কেন? কেউ বললে বা না বললে কিছুই যাবে আসবে না। কারণ ফল সুস্বাদু হলে সবাই খাবে, স্বাদহীন হলে কেউ খাবে না। কুরআন পৃথিবীতে সবচাইতে প্রভাববিস্তারকারি গ্রন্থ, সবচেয়ে বেশি পঠিত, সবচেয়ে বেশি আলোচিত, সবচেয়ে বেশি হৃদয়ঙ্গমকৃত।  সেটার সাথে ঐ বানোয়াট সূরা(!)গুলো প্রতিযোগিতায় নামার প্রাথমিক পর্যায়েও উত্তীর্ণ হতে পারে না। পৃথিবীর সব কাগজ, অডিও, ভিডিও, টেক্সট ধ্বংস করে দেওয়া হলেও সম্পূর্ণ কুরআন থেকে যাবে লক্ষ লক্ষ মানুষের অন্তরে। আংশিক কুরআন থেকে যাবে শত কোটি মানুষের অন্তরে। আপনি হিংসায় ‘আঙ্গুর ফল যে টক নয় কে বললো’ জাতীয় কথা বলতে বলতে হিংসায় মরে গেলে কিছুই করার নেই।

       

      ৪.আর  খ্রিস্টান চার্চে  ঐ গুলো বলা হলে ই বা কি? বলা হয়েছিল সুরা বানানোর সেটা চার্চে গাওয়া হল কি না সেটা বড় কথা না।

      উত্তর: বড় বা ছোট কথা যাই হোক, সেটাই  আসল কথা। কেননা, বানোয়াট সূরা(!)গুলো যীশু ও ক্রিস্টান ধর্মকে নিয়ে লেখা। সেগুলো যদি মানসম্পন্ন কোন রচনা হতো, তবে মুসলিমরা সেটাকে মূল্য দিক বা না দিক খ্রিস্টানরা অন্ত:ত দিত। খ্রিস্টানদের মুখে মুখে তা থাকতো, চার্চেও সেগুলোর পাঠ হতো।

      কিন্তু সূরা দূরে থাক, সেগুলো যে ভালো মানের কবিতা বা গানেরও সমতুল্য হয়নি- তার বড় প্রমাণ হলো খ্রিস্টানরা নিজেরাও সেগুলোকে মূল্যায়ন করে নাই।

      ৫. ক্যটরিনা কাইফের চিকনি চামেলি  গান মানুষের মুখস্ত। ধরে নিচ্ছি হাফেজদের পুরা কোরান মুখস্ত ( যদি ও চ্যলেন্জ করলে লুঙ্গি থাকবে কিনা জানি না) বাকি মুসলমানরা কুরানের অনেক আয়াত ই মুখস্ত রাখেন না। যেমন সুরা নূরের ৩৫ নং আয়াত হয়ত অনেকের মুখস্ত নাই।  তাহলে নিশ্চয়ই চিকনি চামেলী গান কোরানের চেয়ে শ্রেষ্ঠ নাকি?

      উত্তর: ক্যাটরিনা কি গায়িকা বা গান রচয়িতা? চিকনি চামেলি গান তার হয় কি করে?

      তা, চিকনি চামেলি গান কয়টা মানুষের মুখস্ত? কতটুকু মুখস্ত? এগুলো হচ্ছে আপনার নিজ মনকে প্রবোধদানকারি দাবি। সেটা চ্যালেঞ্জ করে আপনার ধুতি খুলে দেবার দরকার নাই

      কই ৬২৩৬ আয়াতের একটি গ্রন্থ, আর কই কয় লাইনের একটা গান!!!!

      চিকনি চামেলি গানের রচয়িতা ও সম্ভবত তার গানকে কুরআনের চেয়ে শ্রেষ্ঠ দাবি করার মতো মূর্খতা দেখাবে না, যেটা একজন ‘কে বললো’ মার্কা মুক্তমনা কল্পনাবিশারদ অবলীলায় করতে পারে।

  9. 17
    saad

    দয়া করে জানাবেন কি কোন দেশের মিশনারি বা কি তার নাম যে এটা করেছে?? কবেই বা এটা প্রকাশিত হল।পুরাই ফালতু বিষয়।

    1. 17.1
      সাদাত

      ঐ ব্যক্তির নামটা এখানে এত জরুরী হলো কেন সেটা বুঝতে পারলাম না। এখানে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে ঐ সাইটটা, যেটাকে দেখিয়ে নাস্তিকরা দাবি করে থাকে যে কুরআনের চ্যালেঞ্জ পূরণ করা হয়ে গেছে। উক্ত খ্রিস্টানের নাম-ধাম যদি বেশি দরকার পড়ে তবে পোস্টের table এ দেওয়া যে কোন একটি বানোয়াট সূরা(!)র নাম দিয়ে সার্চ করুন, অত:পর আরো অনুসন্ধান চালান, পেলেও পেতে পারেন।

  10. 16
    তানভীর

    আমি নিজের কথা বলতাম না ! তবে আমি ওই সাইটটার ব্যাপারে কিছু মন্তব্য করব বলে আমার পরিচয়টা আগে বলি ! আমি একজন কুরআনে হাফেজ এবং আরবী ভাষার ব্যাকরণে আল্লাহর রহমতে অনেক দক্ষতা অর্জন করেছি এবং এখনও করছি ! আরবি সাহিত্য ও কাব্য অনেক অধ্যয়ন করেছি ! এগুলোর গাঠনিক বিন্যাস , তাতে অলংকারশাস্ত্রের প্রয়োগ কেমন হয়, তা আমার খুব ভাল-ভাবে জানা আছে !  কুরআনের ও হাদীসের মূল আরবী টেক্সটের অর্থ সরাসরি বুঝতে পারি ! 

    যাই হোক !

    আমি এই লিখাটা আজকেই পড়লাম আর এই সুরা-লাইক-ইট সাইটটায় আজকেই গেলাম ।

    সাইটটাই গিয়েই সুরাহ হায়াত নামে একটা নকল সুরাতে ক্লিক মারলাম ! 

    এক থেকে দুই লাইন পড়তেই আমি হাসি চেপে রাখতে পারলাম না ! 😀

    একবার সুরাহ গাশিয়া থেকে এক অংশ, আবার সুরাহ নিসাহ থেকে আরেক অংশ, আবার সুরাহ আলে ইমরান থেকে আরেক অংশ ……. ইত্যাদি ইত্যাদি .. 😛 

    আর সেইগুলার অর্থের দিকে খেয়াল করলে মরা মানুষও মনে হয় জ্যান্ত হয়ে হাঁসতে হাঁসতে আবারও অক্কা পাবে ! 😛

    এমন হাস্যকর অর্থবোধক কোন জিনিস আমি জীবনে এই প্রথম পড়লাম ! 

    উদাহরণ-স্বরুপ ২ ও ৩  নং নকল আয়াতের অর্থ , 

    "তোমার কাছে কি সৃষ্টির খবর এসেছে ? যেদিন আল্লাহ জমীন সৃষ্টি করলেন, (সেদিন) তারপরে গাধা সৃষ্টি (?)  করলেন সমস্ত বিশ্বজগতের খেদমতের জন্য !!!! 😛 😛 😛 ( হা হা হা 😀 ও নাউজুবিল্লাহ !  )

    "আর যখন আল্লাহ এক গাধাকে বললেন যে, তুই কামড় দে ! ( 😀 )  , নিশ্চই আল্লাহ শ্রমশীলদের সাথে আছেন ! " 

    হা হা হা ! 😀 😀 😀  কীসের মইধ্যে কী ? 

    এমন হাস্যকর ও একই সাথে আজগুবি ও জগাখিচুড়িমার্কা কথা কেউ কী ইহজনমে শুনেছেন নাকি ? 😀 

    যাই হোক, সব চেয়ে আশ্চর্য হলাম ৪ নং নকল আয়াত বানাতে গিয়ে সুরাহ নিসার ৯৫ আয়াতটার প্রথম থেকে কিছু অংশ এবং শেষের দিকের কিছু আগ থেকে কিছু অংশ নিয়ে এবং মাঝখানে কিছু শব্দ জুড়ে দিয়ে মিলাতে গিয়ে একটা জগাখিচুড়ি বানিয়ে ফেলেছে ! আরবি বাক্যের কোনো গঠনই ঠিক নেই সেইখানে ! 

    এছাড়া যের যবর পেশের ভুল তো প্রতি বাক্যেই কয়েকটা করে দেখতে পেলুম  ! 😛

    কুরআনের জটিল বালাগাত (অলংকারশাস্ত্র) দূরে থাক, সাধারণ বালাগাতও দূরে থাক, জটিল গ্রামারের নিয়মও ছেড়ে দিলাম, সাধারণ গ্রামারের সামান্যতম রুলও জানেনা, যে শয়তানটা এই নকল জিনিসটা তৈরি করেছে ! 

    প্রথম দুই তিন লাইন পড়েই আমি এই অভিজ্ঞতা অর্জন করলাম ! 

    বাকী অংশে কী থাকতে পারে সেইটাও বুঝা হয়ে গেছে ! 

    তাই আর সময় নষ্ট না করে তৎক্ষণাৎ ওই সাইট থেকে প্রস্থান মারিলাম ! 😛 

    আরেহ ! কত বড় বড় আরব কবি সাহিত্যিকরা চেষ্টা করল, যাদের মাথার ভেতর সব সময় জটিল জটিল আরবি সাহিত্য আর কাব্যের দুর্বোধ্য বিন্যাস ঘুরপাক খায়, তারা শত হাজারবার চেষ্টা করেও কুরআনের সমকক্ষ তো দূরে থাক, ধারেকাছের মানবিশিষ্ট একটা আয়াতও লিখতে পারল না ; আর কোন জঙ্গলের কোন আবাল, যে কিনা সাধারণ আরবি ব্যাকরণও জানে না, সে কিনা আইছে সুরা হায়াত লিখবার লাইগা !

    হে হে !  😛 

    যত্তসব শয়তানের দল ! 

    1. 16.1
      সাদাত

      গুরত্বপূর্ণ সংযোজনের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

    2. 16.2
      nur mohammad

      তানভীর ভাইয়ের মন্তব্য পড়লাম, ভাল লাগল তবে কোথায় কি ধরনের ভুল হয়েছে সেগুলো বিস্তারিত দেখাইয়ে দিলে আর ভাল লাগত। ধন্যবাদ।

       

  11. 15

    আপনার যুক্তির মধ্যে কত যে অযুক্তি লুকিয়ে আছে ! কুরআন শরীফ নিজে অন্য আরব সাহিত্য থেকে ধার করা কিনা তা একবারও প্রশ্ন না করে, তা একবারও খতিয়ে না দেখে বরং যে কোন কিছু কুরআন শরীফ এর সাথে মিলে গেলে তা কুরআন থেকে ধার করা বলছেন । একটা ধর্ম কেন সমাজে দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়ে সে সম্বন্ধেও আপনার ধারণার অগভীরতা দেখে আপনার পুরো লেখাটাই অর্থহীন মনে হল। যেসব পাঠক একে বিশ্লেষণ বলে আখ্যায়িত করছেন তাদের আরেকটু কষ্ট করে খতিয়ে দেখা উচিত ধর্ম, গ্রন্থ,সাম্প্রদায়িকতা আর যুদ্ধ ইতিহাস নিয়ে ।     

    1. 15.1
      সাদাত

      কোন্ যুক্তির মধ্যে কোন্ অযুক্তি লুকিয়ে আছে তা না বলে অনেকগুলো ভিন্ন ভিন্ন প্রসঙ্গের অবতারণা করলেন। অবশ্য এটাই নাস্তিকদের পুরনো প্রাকটিস। এই প্রাকটিস দেখলে বুঝে নেই, পোস্টের মূল প্রসঙ্গে তাদের কোন জবাব নেই। আপনার যদি মনে হয় কুরআন অন্য কোথাও থেকে ধার করা হয়েছে, তাহলে সেটা নিয়ে আপনি লিখুন, আমরা খণ্ডাবো। কিন্তু সেটা একবারেই ভিন্ন আরেকটি প্রসঙ্গ, এই পোস্টের সাথে তার কোন সম্পর্ক নেই। লেখার প্রসঙ্গ বুঝে কমেন্ট করুন।

  12. 14
    শাফিউর রহমান ফারাবী

    খুব ভাল একটা পোষ্ট ভাইয়া। আমি নিজেও আল-কোরআনের অসংখ্য ব্যাকরনগত সৌন্দর্য্য একটি NOTE লিখেছি। <a href="http://www.facebook.com/note.php?note_id=534256093254290 ">আল কোরআনের ব্যাকরণগত সৌন্দর্য্যের কিছু অসাধারন দিক</a> 

  13. 13
    Muktadir

    Apnar lekhati darun legese, ey islamic site-ta ami jantam na, jar maddhome jenesi take dhonnobad

    1. 13.1
      সাদাত

      আশা করি সাইটটা নিয়মিত ভিজিট করবেন।

  14. 12
    সরোয়ার

    আল্লাহ আপনাকে আরো এলেম দান করুণ।

  15. 11
    এম ইউ আমান

    আপনার সাহসের তারিফ করতে হয়।
    "আমরা যাব যেখানে কোনো যায়নি নেয়ে সাহস করি। ডুবি যদি তো ডুবি না কেন ডুবুক সবি, ডুবুক তরী।-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, শেষের কবিতা)
    সাদাত সাহেব মাঝি হলে তরী ডুববে না।

  16. 10
    আবদুস সামাদ

    আপনার শ্রম সার্থক হোক। আল্লার চ্যালেঞ্জ বান্দায় মোকাবেলা করার সাহস এত কাল পায়নি। এই চ্যালঞ্জের অন্তর্নিহীত বস্তু কি তা আল্লাই ভাল জানেন। যেটুকু মানুষ আবিষ্কার করার সুযোগ পেয়েছে আমরা শুধু সেটুকুই জানি। আরও অপেক্ষা  করতে হবে। ধন্যবাদ।

  17. 9
    imran hasan

    কি ব্যাপার সদালাপে লগ-ইন কেন করতে পারছি না? ভাই কোন সমস্যা হয়েছে নাকি? 

    1. 9.1
      এস. এম. রায়হান

      সাময়িক সমস্যা হতে পারে যদিও আমি নিশ্চিত নই। আবার চেষ্টা করে দেখুন।

  18. 8
    আবু সাঈদ জিয়াউদ্দিন

    একজন ছিলো আমাদের আত্বীয় ৭ বার ম্যাট্রিক দিয়েও পাশ করতে পারেনি -- এদের অবস্থাতো তাই। তবে বেচারা নাস্তিকগন -- কবে যে এরা হুশে আসবে। 

  19. 7
    শামস

    অসাধারণ!
    এই ওয়েবসাইটের সুত্র আমিও কিছু নাস্তিকদের দিতে দেখেছি! আসল ঘটনা হল এই সাইটের সুরা কোরানকে অতিক্রম করতে পারে নাই,সহজ কথায় খৃস্টান মিশনারীর ভাওতাবাজী আর এইটা আমাদের জ্ঞানী (!) নাস্তিককূল চোখ বুজে বিশ্বাস করছে! এখন এটা স্বীকার করার সৎসাহস তাদের নাই নিশ্চিতভাবে বলা যায়!
    লেখাটিকে আমিও এডিটর'স চয়েসে রাখার জন্য অনুরোধ করলাম।
    সাদাত ভাইকে ধন্যবাদ।
     

  20. 6
    মহিউদ্দিন

    অসংখ্য ধন্যবাদ।
    আমি এই পোস্টটাকে এডিটর'স চয়েস এ রাখার দাবি জানাই।

  21. 5
    করতোয়া

    আসাধারন একটা গবেষনা করেছেন। অসংখ্য ধন্যবাদ। আমার মনে হয় একটা তুলনামূলক প্রবন্ধ সিরিজ হিসেবে যদি প্রকাশ করা যায় তাতে আমার মত শিক্ষনবিস অনেক মুসলিমরে উপকারে আসবে যাতে সহজে তারা পথভ্রষ্ট না হয়। খুব সুন্দর একটা কাজ করেছেন। 

  22. 4
    আবদুল্লাহ সাঈদ খান

    জাযাকআল্লাহ। Suralikeit এর লুকোচুরি খেলা নিয়ে এখানে সুন্দর একটি আলোচনা আছে।
     

  23. 3
    মহাবিদ্রোহী রণক্লান্ত

    এই সাইটটার কথা জানা ছিল না,জানানোর জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ।আমি ভেবে পাই না যে কোন পাগল কুর্‌আনের সমকক্ষ সূরা লেখার উদ্যোগ নিয়েছে!এই প্রচেষ্টার চেয়ে হার্টঅ্যাটাক করে মারা যাওয়াও অনেক ভালো।

  24. 2
    ইমরান হাসান

    এই ‘সুরা লাইক ইট’ ব্যবহার করে আমাকেও বেশ কয়েকবার বিতর্কে হারানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। আশ্চর্য তখন আমিও জানতাম না যে এই সাইটের সমস্ত সুরা সমূহ আল কুরআনেরই সুরা সমূহের আয়াতের সমষ্টি!!!!!!!!!! 
     
    আমি এই পোস্টটাকে এডিটর'স চয়েস এ রাখার দাবি জানাই 

    1. 2.1
      সাদাত

      @ইমরান হাসান:

      এটা কিন্তু অতিরঞ্জন হয়ে গেল। এটা ঠিক যে ঐ সূরা(!)গুলোতে বহুল পরিমাণে আল-কুরআন হতে ধার করা হয়েছে। কিন্তু সেগুলোকে আল-কুরআনের আয়াতসমূহের সমষ্টি কোনভাবেই বলা যাবে না।

       

  25. 1
    এস. এম. রায়হান

    আল-কুরআনের অনুরূপ সূরা বানানো যখন এতই সহজ তখন নাস্তিক মশাইরা নিজেরা এই উদ্যোগ না নিয়ে কোথাকার কোন্ খ্রিস্টানের বানানো সূরাকে পেশ করেন কেন?

      

    উক্ত খ্রিস্টানের সূরা(!)গুলো যখন এতই সুন্দর আর শ্রুতিমধুর তখন তো সেগুলো নিয়ে তো সারা দুনিয়ায় হুলস্থুল পড়ে যাবার কথা, দিকে দিকে সুললিত কন্ঠে এই সূরাগুলো পঠিত হবার কথা। অসংখ্য মানুষের, না হলেও অসংখ্য খ্রিস্টানের, এই সূরাগুলো মুখস্ত হয়ে যাবার কথা! চার্চে চার্চে এই সূরাগুলো চর্চিত হবার কথা। কিন্তু কৈ, তেমন তো কিছু হলো না! এই সূরা(!)গুলোর কথা তো অধিকাংশ মানুষ জানেই না।

    লজ্জা! লজ্জা! 

    1. 1.1
      সাগর

      লেখক তার ধরমকে বাচাতে চান সেটা জানি…।। তিনি মনে হয় জানেন না শিয়া রা এক্তি নতুন সুরা তাদের কুরানে যোগ করেছে…এখন ধারমিকদের কাজ হল অই সুরাতিকে গ্রহন না করা…।।হাস্যকর তাদের যুক্তি…।। নতুন এক্তা সুরা লেখা হলে আমি সেতা গ্রহন করলাম না কারন কুরানের মানের নয়…।আজব…।।কুরান এর সুরাগুলি কি মঙ্গল গ্রহের হরফে লেখা…।শুন্তেও একি  রকম কিন্তু অই …।। তাহলে ত ধর্ম থাকেনা…।।

      1. 1.1.1
        ইমরান হাসান

        আপনি সুরা বেলায়েত এর কথা বলছেন তাই না? কান নিয়েছে চিলে এই কথাটা শুনেছেন? শুনেন সুরা বেলায়েত যে শিয়া কুরআন থেকেও রিজেক্ট করা হয়েছে এটা জানেন? আপনি আমাদের আহাম্মক বলতে চান আর নিজেকে মহাপণ্ডিত মনে করেন যেন আপনার একটা কমেন্ট আমাদের মানকে ১০০% বাড়িয়ে দিবে। আগে ঠিকমত সব জেনে তারপরে এখানে আসবেন তর্ক করতে নাতো নিজে কতবড় আহাম্মক সেটারই খালি প্রমান দিবেন। 

      2. 1.1.2
        সাদাত

        লেখক না জানিয়া মাঠে নামিবার লোক নন।
        তবে আপনি বোধ হয় জানেন না, এই লেখকের একটি নিয়ম আছে, আর তা হলো তিনি তার পোস্টে প্রসঙ্গের বাইরে সহসা যান না।
        ভালো করে বুঝে রাখুন-
        আল কুরআনকে নিয়ে আল্লাহপাকের দুটি ভিন্ন চ্যালেঞ্জ আছে-
        ১. আল-কুরআনের সমকক্ষ কোন সূরা কেউ বানাতে পারবে না।
        ২. আল-কুরআনে সংযোজন বা বিয়োজনের মাধ্যমে কেউ বিকৃত করতে পারবে না।
        আমার পোস্টের আলোচনার প্রসঙ্গ প্রথম চ্যালেঞ্জ নিয়ে এবং একটি বিশেষ সাইট ঐ চ্যালেঞ্জ মুকাবিলা করতে যেয়ে কতটুকু সফল বা ব্যর্থ হয়েছে সেটা।
        আর আপনি যে শিয়াদের একটি সূরা বানানোর কথা বলছেন, (আসলে একটি না, দু্টি) তা কিন্তু ১ম চ্যালেঞ্জের মুকাবিলা ছিল না, কোন শিয়া সেই দাবি করে নাই। তা ছিল কুরআনে নতুন কিছু সংযোজনের চেষ্টা। ফলে এটাকে আমরা ২য় চ্যালেঞ্জের পরোক্ষ মুকাবিলা মনে করতে পারি, যেটা আমার পোস্টের প্রসঙ্গ নয়। তারপরও বলছি, উক্ত শিয়ারা কিন্তু সূরা দুটোকে শিয়া কুরআনে সংযুক্ত করতেও সক্ষম হয়নি, ধরা খেয়ে গেছে- ফলে ২য় চ্যালেঞ্জের মুকাবিলাতেও তারা ফেল মেরেছে।
        এ সম্পর্কে  বিস্তারিত জানতে এখানে দেখুন:
        http://www.islamic-awareness.org/Quran/Text/forgery.html

Leave a Reply

Your email address will not be published.