«

»

Feb ১১

আমার পাঠকদের জন্য

  1. "যাবতীয় প্রশংসা আল্লাহ তা' আলার যিনি সকল সৃষ্টি জগতের পালনকর্তা"-সূরা ফাতিহা, আয়াত ২। উক্ত আয়াত থেকে বুঝা যাচ্ছে যে, সকল প্রশংসার প্রাপ্য মহান স্রষ্টার কারণ প্রশংসিত জিনিস তিনিই সৃষ্টি করেছেন।
  2. "আমরা একমাত্র তোমারই ইবাদত করি এবং শুধুমাত্র তোমারই সাহায্য প্রার্থনা করি"-সূরা ফাতিহা, আয়াত ৫। এই আয়াত যাবতীয় কুসংষ্কার থেকে মুক্তি দেয়, কারণ মানুষের সাধ্যের বাহিরের জিনিস পেতে চাওয়াই হল প্রার্থনা এবং এই দোয়া একমাত্র আল্লাহ পাকের কাছেই করা যায়। এতে করে সর্বপ্রকার কুসংষ্কার, উমুক দেবতা, তমুক দেবতার উদ্দোশ্যে বলী, উতসর্গ ইত্যাদি করা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।
  3. "বলুন, তিনি আল্লাহ, এক, আল্লাহ অমুখাপেক্ষী,  তিনি কাউকে জন্ম দেননি এবং কেউ তাকে জন্ম দেয়নি, এবং তার সমতুল্য কেউ নেই"-সূরা এখলাস। এই আয়াতগুলি যাবতীয় মিথ্যা খোদা্র হাত থেকে মুক্তি দেয়, এই আয়াতগুলি প্রকৃত স্রষ্টার পড়িচয় তুলে ধরে এবং ঈশ্বর সম্পর্কিত যাবতীয় ভুল ধারনা বাতিল করে দেয়।
  4. "এ সেই কিতাব যাতে কোনই সন্দেহ নেই। পথ প্রদর্শনকারী পরহেযগারদের জন্য, যারা অদেখা বিষয়ের উপর বিশ্বাস স্থাপন করে এবং নামায প্রতিষ্ঠা করে। আর আমি তাদেরকে যে রুযী দান করেছি তা থেকে ব্যয় করে এবং যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছে সেসব বিষয়ের উপর যা কিছু তোমার প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে এবং সেসব বিষয়ের উপর যা তোমার পূর্ববর্তীদের প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে। আর আখেরাতকে যারা নিশ্চিত বলে বিশ্বাস করে। তারাই নিজেদের পালনকর্তার পক্ষ থেকে সুপথ প্রাপ্ত, আর তারাই যথার্থ সফলকাম"-সূরা বাক্বারাহ, আয়াত ২-৫। উক্ত আয়াতগুলি মুসলিমদের পড়িচয় ঐ বৈশিষ্ঠ বর্ননা করে, এবং যাবতীয় বিশ্বাস একত্রিত করে এবং অপবিশ্বাসের হাত থেকে মুক্তি দেয়।
  5. "আর উপাসনা কর আল্লাহর, শরীক করো না তাঁর সাথে অপর কাউকে। পিতা-মাতার সাথে সৎ ও সদয় ব্যবহার কর এবং নিকটাত্নীয়, এতীম-মিসকীন, প্রতিবেশী, অসহায় মুসাফির এবং নিজের দাস-দাসীর প্রতিও। নিশ্চয়ই আল্লাহ পছন্দ করেন না দাম্ভিক-গর্বিতজনকে"-সূরা নিসা, আয়াত ৩৬। উক্ত আয়াত মানুষকে মুসলিম হিসাবে কি করতে হবে, তা প্রকাশ করেছে। বাকিটুকু নিজ জ্ঞানেই বুঝোতে পারছেন।
  6. "যারা আল্লাহ ও শেষ দিবসের আশা রাখে এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে, তাদের জন্যে রসূলুল্লাহর মধ্যে উত্তম নমুনা রয়েছে"-সূরা আহযাব, আয়াত ২১। উক্ত আয়াত মুসলিমদের আদর্শ ও অনুস্বরণীয় ব্যাক্তিত্ব বর্ননা করেছে।
  7. "আর ক্ষমা করার অভ্যাস গড়ে তোল, সৎকাজের নির্দেশ দাও এবং মূর্খ জাহেলদের থেকে দূরে সরে থাক।"-সূরা আল আ'রাফ, ১৯৯ ।
  8. "এবং নোংরা বাক্যের উদাহরণ হলো নোংরা বৃক্ষ। একে মাটির উপর থেকে উপড়ে নেয়া হয়েছে। এর কোন স্থিতি নেই"-সূরা ইব্রাহিম, আয়াত ২৬।
  9. "সেদিন মানুষ বিভিন্ন দলে প্রকাশ পাবে, যাতে তাদেরকে তাদের কৃতকর্ম দেখানো হয়, অতঃপর কেউ অণু পরিমাণ সৎকর্ম করলে তা দেখতে পাবে, এবং কেউ অণু পরিমাণ অসৎকর্ম করলে তাও দেখতে পাবে"-সূরা যিলযাল ৬-৮
  10. "আমি যাকে ইচ্ছা, মর্যাদায় উন্নীত করি এবং প্রত্যেক জ্ঞানীর উপরে আছে অধিকতর এক জ্ঞানীজন।"-সূরা ইউসুফ, আয়াত ৭৬।
  11. "একশ্রেণীর লোক আছে যারা মানুষকে আল্লাহর পথ থেকে গোমরাহ করার উদ্দেশে অবান্তর কথাবার্তা সংগ্রহ করে অন্ধভাবে এবং উহাকে নিয়ে ঠাট্টা-বিদ্রূপ করে। এদের জন্য রয়েছে অবমাননাকর শাস্তি।"-সূরা লোকমান, আয়াত ৬।

 

৪ comments

Skip to comment form

  1. 3
    মোহাম্মাদ শাহান আল- ইমরান

    আল্লাহ্ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দিন ।

     

  2. 2
    md sahensah

    Thanks eto gurutto purno ekti post dear jonno.

  3. 1
    নির্ভীক আস্তিক

    পড়লাম। একটা ব্যাপার বলার জন্য এসেছি। আপনি কি বেদিউজ্জামান সাঈদ নুরসী(১৮৭৭-১৯৬০) সম্পর্কে জানেন? একজন কুরদিস মুসলিম। "বেদিউজ্জামান" শব্দটি কিন্তু তার নিকনেম নোটিংঃ "The most unique and superior person of the time"। তুরস্কের শাসকগোষ্ঠি যারা ইউরোপিয়ান  সাজতে চেয়েছিলেন তাদের  জন্য বিশাল হুমকি ছিল এই মহান নেতা। দেখতে পারেন। মূলত মৌলবাদী নাস্তিক কম্যুনিস্টদের মত বামদের চরমপন্থি কর্মকাণ্ডে ইসলামকে জোরপূর্বক  মুছে দিতে শুরু করে তাদের বিপরীতে উনার শান্তিপূর্ণ ইসলামিক শিক্ষা যে শুধু দেয়াল হয়ে দাঁড়ায় তাই নয়,  এর জন্য মুসলিমরা উল্টো ঘুরে দাঁড়ানোর  প্রাণবন্ত শক্তিও খুজে পায় তুরস্কে। বাম্পন্থিরা তাকেও দেশ থেকে বের করে দেয়, কখনো মিথ্যা মামলা দিয়ে বছরের পর বছর জেলে বন্দী করে রাখে, গৃহ বন্দী করে রাখে, বিষ দিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। তার তুলনায় আমাদের এই বাংলাদেশে মৌলবাদী নাস্তিক সাম্প্রদায়িক মহল মুসলিমদের প্রতি Violent-Vulgar attack করেও অনেকটা আরাম আয়েসেই দিন কাটাচ্ছে।  উনার শান্তিপূর্ণ ইসলাম চর্চার অধ্যায়, বিজ্ঞানের সম্পর্কে তার যুক্তিপূর্ণ মতবাদ আর মুসলিমদের মধ্যে আভ্যন্তরীণ সাম্প্রদায়িক বিভেদ (শিয়া মুসলিমদের কে তিনি নিজের ভাই বলে কাছে টেনে নেয়ার ঘটনা) কে বুড়োআঙ্গুল দেখিয়ে তিনি যে দর্শন প্রতিষ্ঠা করেন সেটাই কিন্তু আজ তুরস্কের অনেক ইসলামপন্থীদের রোল মডেল।   

    "Through the endeavours of science, what will prevail entirely in the present and totally in the future, is truth instead of force, proof instead of sophistry, and reason instead of nature", 

    তার লেখা সবচাইতে আলোচিত বইটিও পড়তে পারেন। Risale-i-Nur বইটি আসলে তার নিজের জীবন, নিজের দৃষ্টিভঙ্গি আর নিজের কমেন্টারি দিয়ে লেখা। আপনি চাইলে আমাদের জন্য এ বইয়ের একটি ধারাবাহিক অনুবাদ লিখতে পারেন।  বইটির ইংরেজী ভার্সন পাওয়া যাবে এখানে। আর তার সম্পর্কে একটি সংক্ষিপ্ত আর্টিকেল পাবেক এই জায়গায়

     

    1. 1.1
      ফাতমী

      ধন্যবাদ বস। আসলে আমি বেদিউজ্জামান সাঈদ নুরসী কে নিয়ে কিছু পড়িনি, তবে আপনাকে ধন্যবাদ আমার কাছে পড়িচিত করার জন্য। আসলে পৃথিবীটা বিশাল বিশাল বড়।

       

      জানতে পেরে ভাল লাগল। আমি অবশ্যই তাঁকে নিয়ে পড়াশুনা করব, ইনশা-আল্লাহ।

Leave a Reply to নির্ভীক আস্তিক Cancel reply

Your email address will not be published.