«

»

Oct ১৯

৬৯ হিজরির বাংলাদেশের মসজিদ (উতসর্গঃ ফারুক ভাই ও কোরান আনলী ভাইয়েরা)

শিলালিপি১৩০০ বছর আগের

কুরান আনলী ভাইয়েরা এবং ফারুক ভাইয়ের সাথে আমার একবার একটা বিষয়ে বিতর্ক হয়েছিল। বিতর্কের বিষয় ছিল লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহামাদুর রাসুল্লাহ। আমি আল কুরানের সূরা কাফিরুন ব্যাবহার করে পরিষ্কার ভাবে দেখিয়েছিলাম যে এই সূরাটি কিভাবে কলেমা তাইবাকে রেটিফাই(অনুসমর্থন) করে। তখন ফারুক ভাই সরাসরি উত্তর দেন নাই বরং পালটা কিছু প্রশ্ন করেছিলেন। দুঃখজনক ব্যাপার হল সদালাপ ডট কম ব্লগ হারিয়ে যাওয়ায় আমার লেখাটিও হারিয়ে গেছে। যাইহোক প্রথম আলোতে একটা খবর দেখে চোখ আটকে গেল, মন চাইল জানতে কুরান আনলীদের এ ব্যাপারে মতামত।

৬৯ হিজরি মানে প্রায় ১৩০০ বছর আগের, এবং রাসূল সাঃ এর সাথে সময়ের প্রায় পার্থক্য ৫০ বছর বা তারও কম, কারণ পাকা ঘর তৈরি করতে সেই সময় যতেষ্ট সময়ের দরকার পরত। “৬৯ হিজরির হারানো মসজিদ তায়ালিমুল কোরআন নূরানি মাদ্রাসার শিক্ষক হাফিজ নূর আলম জানান, মজদের আড়ায় চাষাবাদ করার জন্য খোঁড়া শুরু হয় ১৯৮৩-’৮৪ সালের দিকে। টিলাটি সমতল করার জন্য খোঁড়া শুরু হলে এখানে প্রচুর ইট পাওয়া যায়। স্থানীয় লোকজনের ধারণা, পুরোনো কোনো জমিদার কিংবা রাজরাজড়ার বাড়ি হয়তো এখানে ছিল। এ কারণে তারা এ নিয়ে কোনো রূপ সতর্ক হওয়ার প্রয়োজন অনুভব করেনি। যে যার মতো ভাঙা ইটের টুকরো নিয়ে গেছে এবং বেশির ভাগই তারা নিজেদের বাড়িঘরের কাজে লাগিয়েছে। কিন্তু একটা ঘটনায় পাল্টে যায় পুরো ঘটনাচক্র। একটা ইটের ছিটকে পড়ার ঘটনা, স্থানীয় ভাষায় ‘ছটকে পড়া’র মধ্য দিয়েই মজদের আড়ায় আবিষ্কৃত হয় ৬৯ হিজরি বা ৬৪৮ খ্রিষ্টাব্দের হারানো মসজিদ। স্থানীয় অধিবাসী আফছার আলী বলেন, ‘আমরা ঘটনাটিকে অলৌকিক বলেই মনে করি। ঘটনাটা হলো, আইয়ুব আলী নামে রামদাসের একজন বাসিন্দা অন্য অনেকের মতো মজদের আড়া থেকে ইট কুড়িয়ে নিয়ে যান, যা পরিষ্কার করার সময় দেখতে পান, ইটের গাদা থেকে একটা ইট যেন আলাদাভাবে ছিটকে পড়ল। তিনি আশ্চর্য হন এবং কৌতূহল বোধ করেন। ছিটকে পড়া ইটটার ওপর কী যেন লেখা দেখতে পান। টিউবওয়েলের পানিতে ইটটা ভালো করে ধুয়ে নেন। তারপর ইটটা অন্যদের দেখালে সবাই দেখতে পান, ওই ইটটি একটি প্রাচীন শিলালিপি, যার আকার ৬X৬X২, ওপরে স্পষ্টাক্ষরে লেখা, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ হিজরি সন ৬৯” –কাজল রশীদ ও ইফতেখার মাহমুদ

ফারুক ভাই এবার কি বলবেন জানতে চাই ?

১৮ comments

Skip to comment form

  1. 8
    এম_আহমদ

    এই বিষয়টি সত্য হওয়ার পক্ষে আরবীতে কিছু তথ্য আছে। কোথায় যে পড়েছি পড়েছি তা স্মরণ করতে পারছি না, তা অমনি আবার চোখের সামনে হাজির হলে, আর স্মরণ থাকলে এখানে মন্তব্য করে যাব। তবে সেই তথ্যটি মসজিদ নির্মাণ নয় বরং চিটাগাঙ, শ্রীলংকা, জাবা সুমাত্রার সাথে আরবের নৌ-বিচরণ ও বাণিজ্য সংক্রান্ত।   

    1. 8.1
      মুনিম সিদ্দিকী

      এইটি ইবনের বতুতার ট্রাভেল কাহিনীতে পাওয়া যায়।

  2. 7
    শামস

    খুব তাৎপর্যপূর্ণ একটি আবিষ্কার। 
    পৌত্তলিক আরবদের সময়েও যে ভারতবর্ষের সাথে তাদের ব্যবসায়িক যোগাযোগ ছিল তা সবাই মানেন। মুহম্মদ (সাঃ) এর দ্বারা ইসলামের পুনরাগমনের সময় ও তার পরবর্তী সময়েও এই ব্যবসায়িক যোগাযোগ বন্ধ হয়নি। তবে মুহম্মদ (সাঃ) এর অনুসারীরা কেবল ব্যবসায়িক কারণে নয় ধর্মীয় কারণেও এখানে আগমণ করেছিল তার প্রমাণ পাওয়া যায়। যদি যথাযথ গবেষণা করা হয়, তাহলে ইসলামের প্রচার ও প্রসারের ব্যাপারে অনেক ভুল ও মিথকে ভাঙ্গা যাবে। পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া এধরণের গবেষণা বেশীদূর এগোবে না।
     

    1. 7.1
      ফুয়াদ দীনহীন

      @শামস,
      শামস ভাই, আল্লাহ পক যদি চান তাহলে গবেষনা হবে, হতেই হবে।

  3. 6
    মহিউদ্দিন

    অবশ্যই এই বিষয়টি নিয়ে গবেষনা করা উচিত।

    1. 6.1
      ফুয়াদ দীনহীন

      yes

  4. 5
    আবু সাঈদ জিয়াউদ্দিন

    দারুন একটা সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হবে এই জায়গা থেকে। অবশ্যই এই বিষয়টি নিয়ে গবেষনা করা উচিত। এতে ইতিহাসের নতুন অধ্যায় সূচনা হবে। ইতিহাস নতুন ভাবে লেখা হবে। বিশেষ করে তরবারীর মাধ্যমে ভারতে ইসলাম প্রচারের যে ইতিহাস লেখার প্রবনতা তা থেকে বের হওয়া যাবে। 

    1. 5.1
      ফুয়াদ দীনহীন

      @আবু সাঈদ জিয়াউদ্দিন,
       
      সবই আল্লাহ পাকের ইচ্ছা, তিনি এমন সময় এই বিষয়টি সামনে নিয়ে আসলেন যখন এটা সব থেকে বেশী দরকারী। আল্লাহ পাক চাইলে অবশ্যই গবেষনা হবে। তিনি যেন আমাদের নেত্রীত্বস্থানয়ী ব্যাক্তিদের সুবুদ্ধি দেন। 
      এটা দিয়ে অনেক কিছুই প্রমান হয়। ম জ বাসার সাহেব যেমন আব্বাজান, নানাজান, ফারুক সাহেব যেমন বাংলার রাসূল খুজে বেড়ান তার সমাধান হবে। ইতিহাসের নতুন পাতা লিখতে শুরু হবে। আমার ধারণা উপযুক্ত গবেষণা হলে ইনশা-আল্লাহ আরো প্রমাণ বের হবে। এখন শুধু অপেক্ষায় থাকার পালা। 

  5. 4
    মহাবিদ্রোহী রণক্লান্ত

    এটা এখনো গবেষণার পর্যায়ে আছে ভাই।তাই এখনো কিছুই নিশ্চিত নয়।তবে বাংলাদেশে এত আগে মসজিদ হওয়াটা অসম্ভব মনে হয় না।কারণ উপমহাদেশের সাথে বাণিজ্যিক সম্পর্কের জন্য আরবদের এখানে আসতেই হত।হয়ত থাকতেও হত কয়েক দিন একটানা।যেহেতু এই অঞ্চলে তখন কোনো মুসলিম ছিল না,সেহেতু মসজিদও ছিল না।তাই নামাজ আদায়ের প্রয়োজনে আরবরা হয়ত জমি কিনে এখানে মসজিদ বানিয়েছিল।

    1. 4.1
      ফুয়াদ দীনহীন

      @মহাবিদ্রোহী রণক্লান্ত,
      সাহিত্যে তাতকালীন মুসলিমদের সাহস ছড়িয়ে আছে। আমি এখনি একটি উপন্যাসের নাম বলতে পারি। "Eaters of the Dead: The Manuscript of Ibn Fadlan Relating His Experiences with the Northmen in A.D. 922" এর ইংরেজি সিনেমা ভার্সন আমি দেখেছি। সেখানে জার্মানিক সুইডিশ ভাইকিংগোত্রের সাথে এক আরব মুসলিম গল্প করতে যায়। সেখানেই ভাইকিং রাজার কাছে খবর আসে, ভাইকিংদের আরেক রাজা তার কাছে সাহায্য পার্থি। সে গনকের কাছে যায়, গনক ১২জন ভাইকিং মানে নর্থম্যান এবং একজন অনর্থম্যানকে যুদ্ধা হিসেবে নিতে বলে। ঐ আরবও তাই তাদের সাথে যায়। এবং রাজা তাকে প্রশ্ন করে, You can drow the sound ? সে উত্তর দেয়, Yes, I can drow the sound and I can read them back. তখন রাজার অনুরোধে লিখতে বলায় সে লিখে, (সে ইংরেজি অনুবাদ পড়ে) লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহামাদুর রাসূল্লুল্লাহ। রাজা উঠে চলে যায়। কিন্তু যুদ্ধ ক্ষেত্রে পোছার কিছু আগেই রাজা আবার ঐ লেখাটা কপি করি, পড়তে বলে, সে পড়ে "লা ইলাহা ইল্লাহু মুহামাদুর" রাজা এতটুকু কপি করেছিল, সে আরেকটু লিখে বলে "রাসুল্লল্লাহ" রাজা অবাক হয়ে চলে যায়। গল্পটি কোন মুসলিম কর্তৃক লেখা নয়। 
      গল্প বলার কারণ হল, আমরা এ রকম গল্প শুনি অনেক, যেমন সিনবাদের কাহিনি। গল্প গুলি যেহেতু ঐ সময়ের মানুষদের সাহস বুঝানো হয়েছে, সেহেতু সেই সময় মানুষ আসলেই দুঃসাহসী ছিল। তাই, বাংলাদেশে নৌকায় চড়ে তারা আসতে পারবে না, এবং এট লিস্ট কিছু সংখ্যক মানুষকে মুসলিম বানাতে পারবে না, সেটা কোন মতেই বলা যায় না।  

      1. 4.1.1
        মহাবিদ্রোহী রণক্লান্ত

        "রণক্লান্ত"র জায়গায় "বড়ক্লান্ত" ইচ্ছে করেই নাকি?

        1. 4.1.1.1
          ফুয়াদ দীনহীন

          না, ইচ্ছে করে না, জাস্ট এখনি লক্ষ্য করলাম। smiley তবে নামটা খারাপ হয় নাই। smiley 

  6. 3
    P C

    How about DD.MM.YY? Does it take rocket science to simply understand that the year 69 could have an implied prefix, such as hundred [and 69], two hundred [and 69] or three, four or five hundred or whatever! … Haven't you ever shortened a year to two digits while writing dates, for example, 19/10/12 for today?
    http://www.shodalap.org/wp-content/plugins/wp-monalisa/icons/wpml_negative.gif

    1. 3.1
      ফুয়াদ দীনহীন

      @P C,
      হ আপনি কিভাবে নিশ্চিত হইলেন এটা সংক্ষিপ্ত লিখা ? আর হিজরির শুধু সাল লেখলে সংক্ষিপ্ত কেন লিখবে ? ধরুন আমরা কি লিখি শুধু ১২, নাকি সামনে দিন আর মাস দিয়ে দেই। আর বর্তমানেও স্থাপত্য লিপিতে পুরো সাল লেখা হয়। এটা মানুষের সাইন না। আপনি যে নিশ্চিত ভংগিতে লিখলেন তাতে মনে হচ্ছে ঘটনা আপনাকে ভালই হোছট দিয়েছে। no  no

  7. 2
    মুনিম সিদ্দিকী

    এমনও তো হতে পারে পরবর্তিতে কেউ ঐ শিলালিপি আরব থেকে এখানে নিয়ে এসেছিলেন!!!

    1. 2.1
      ফুয়াদ দীনহীন

      এমনও তো হতে পারে পরবর্তিতে কেউ ঐ শিলালিপি আরব থেকে এখানে নিয়ে এসে ছিলেন-মুনিম সিদ্দিকী

      এটা একটা ভুল এজেমশন, কারণ শুধু শিলা লিপে কেউ নিয়ে আসার কোন কারণ নেই যেহেতু এখানে সাল লেখা আছে, এবং সাল স্থাপত্যের সময়কাল বুঝানোর জন্য দেওয়া হয়ে থাকে। তাছাড়া, আরব থেকে এনে জংগলে ফেলে রাখার ও কোন কারন নেই। তাছাড়া, এটা এমন সময় কাল নির্দেশ করে যা আরবের জন্যও গুরুত্বপূর্ন এবং তা বহু টাকা মূল্যে বাংলাদেশে কেউ আনার মত নেই। এই কাজ গুলি সাধারণ "শাহজাহান" করতেন যেহেতু উনার কাছে অটেল টাকা ছিল। ইতিহাস বলে শাহজাহান এমন কোন শিলালিপি বাংলাদেশ অঞ্চলে নিয়ে আসেননি। অতএব, এটা ৬৯ সালের কোন সাহাবাহ কিংবা তাবেয়নীর তৈরি। 

  8. 1
    সাদাত

    মসজিদটা আমি দেখে এসেছি। অল্প কিছু অংশ এখনো চিহ্নস্বরূপ রেখে দেওয়া হয়েছে। পুরনো মসজিদের ওপর নতুন মসজিদ/মক্তব করা হয়েছে। আমি মোবাইলে কিছু ছবি তুলেছিলাম, কিন্তু ফেরার সময় মোবাইল সেটটি চুরি হয়ে যায়। যাই হোক। আপনার দেওয়া ছবিদুটোর ফটোকপি মাদ্রাসার শিক্ষকের কাছে রয়েছে, তবে মূল অংশ সম্ভবত রংপুর জাদুঘরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

    1. 1.1
      ফুয়াদ দীনহীন

      @সাদাত,
      সাদাত ভাই, এ বিষয়ে জরুরি ভিত্তিতে গবেষনা দরকার, আমার মনে হয় আরো শিলালিপি পাওয়া যেতে পারে, কিংবা আরো মসজিদ। কি করা উচিত বুঝতে পারতেছি না। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.