«

»

Jan ১৮

রসূল (স) এবং আয়শা (র) এর বিয়ে নিয়ে আলোচনা

এই প্রবন্ধটি আগেও ফেসবুকসহ বিভিন্ন ব্লগে প্রকাশ করেছিলাম।ভাবলাম একটি সংগ্রহ সদালাপেও থাকুক।এ লেখাটি সর্বপ্রথম আমি 'অ্যানোন দ্যা অ্যানোনিমাস' ছদ্মনামে লিখে প্রকাশ করেছিলাম।সুতরাং লেখার লেখক নিয়ে যেন কোনো বিতর্ক সৃষ্টি না হয় তাই বিষয়টি জানিয়ে দেয়া গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করি।

 

লেখাটা শুরু করার আগে কিছু তথ্যের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ-

১।বাইবেলের নবী এবং রোমান সম্রাটগন  ৮ বছরের মেয়েকে বিয়ে করত।

 ২।হযরত মরিয়াম (আ) ১০-১৪ বছর বয়সে গর্ভবতী হয়েছিলেন

৩। ১৮৮০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের দেলোয়ারে মেয়েদের সর্বনিম্ন বিয়ের বয়স ছিল ৭

৪।ইহুদীদের তালমুদ অনুসারে মূসা (আ) এবং তার অনুসারীরা ৩ বছর  বয়সী মেয়েদের সাথে যৌনমিলন করেছিল।-জ্বি হ্যাঁ ঠিক পড়েছেন ৩ বছর বয়সী মেয়েদের সাথে তবে সেগুলো ইহুদীদের তালমুদ অনুসারে।

আয়শা (র) এর পিতা-মাতাই আয়শা (র) এর বিয়ে রসূল (স) এর সাথে দিয়েছিলেন। এবং কোনো মুসলিম কিংবা অমুসলিম কেউই এটার প্রতিবাদ করে নি কারণ সে সময় মেয়েদেরকে এ বয়সেই সাধারণত বিয়ে করা হত এবং এটা ছিল একটি স্বাভাবিক বিষয়।যাই হোক,যে কারণে সে সময় কেউ এটার প্রতিবাদ করে নি তার আসল কারণ ছিল সে সময় আরবের মানুষদের আয়ু ছিল কম। মানুষ ৪০-৬০ বছর বয়সেই সাধারণত মারা যেত।তাই সাধারণ এবং প্রাকৃতিকভাবে ৯/১০ বছরের মেয়েকে বিয়ে করাটাই ছিল সে সময়ে স্বাভাবিক।তাছাড়া এই বর্তমান কালেও মুসলিম/অমুসলিম দেশে মেয়েদের ৯/১০ বছরে বিয়ে হয়। ১৮৮০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের দেলোয়ারে বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স ছিল ৭ বছর। চলুন দেখি মাত্র ১৩৫ বছর  আগে পৃথিবীতে বিভিন্ন দেশে বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স কত ছিল(বাম পাশে দেশ আর ডান পাশে বয়স)

1.Bulgaria-13
 2.Denmark-12
 3.England-13
 4.France-13
 5.Portugal-12
 6.Russia-10
 7.Scotland-12
 8.Spain-12
 9.Canada-12
 10.Alabama-10
 11.Arizona-12
 12.Florida-10
 13.Arkansas-10
 14.California-10
 15.Colorado-10
 16.Idaho-10
 17.Illinois-10
 18.Indiana-12
 19.Lowa-10
 20.Kansas-10
 21.Delaware-7

লিস্টটা আরও বড় তবে আমি এখানেই ইতি টানছি। আপনি চাইলে এখানে গিয়ে আরও দেখতে পারেন http://chnm.gmu.edu/cyh/primary-sources/24

তাছাড়া বাইবেলিকাল আর ইসলামি সময়গুলোতে মেয়েদের বিয়ে সে সময়েই হয়ে যেত যখন তাদের প্রথম ঋতুস্রাব বা বক্ষ দেখা যেত।এক কথায় যখন তাদের বিয়ে হতো তারা প্রাপ্তবয়স্ক নারী ছিল। অন্যদিকে পুরুষদের জন্য ব্যাপারটা ছিল ভিন্ন।কারণ বিয়ের আগে শারীরিক শক্তি,ক্ষমতা এবং একটি স্বাধীন জীবন পুরুষদের জন্য আজীবনই বাধ্যতামূলক রয়ে যাবে।তাই মেয়েদের তুলনায় ছেলেরা বেশি অপেক্ষা করত বিয়ের ক্ষেত্রে।তাই ৯/১০ বছরের মেয়েদের ৩০(এমনকি আরও বেশি) বছরের পুরুষদের সাথে বিয়ে দেয়া হত। রসূল (স) এবং আয়শা (র) এর বিয়ে ছিল আইনতভাবে ১০০% বৈধ এবং সকল ঐশ্বরিক ধর্ম অনুযায়ী তা অনুমোদিত ছিল। তাই নবী (স) কে একজন নারীলোভী,শিশু নির্যাতক,যৌন নির্যাতক বলাটা কতোটাই না হাস্যকর এবং অযৌক্তিক যেখানে আয়শা (র) এর বাবা-মা,এবং সে সময়ের সকল মানুষ এমনকি ইসলামের শত্রু প্যাগানদের কাছেও বিষয়টি গ্রহণযোগ্য ছিল। অবশ্য বাইবেলের তথ্য অনুযায়ী মূসা(আ) এবং তাঁর অনুসারীদের দ্বারা যে ৩ বছরের একটি মেয়ে ধর্ষিত হয়েছিল সেটা ইসলাম বিদ্বেষীদের চোখে পরে না| শ্য Exodus 21:7-11 এ মেয়েদেরকে ক্রীতদাসী হিসেবে পিতারা বেচে দিত এতেও ইসলাম বিদ্বেষীদের কোনো সমস্যা নেই আবার বাইবেলে এক্স রেটেড পর্ণগ্রাফি সম্পর্কেও ইসলাম বিদ্বেষীরা যেন মুখে তালা মেরে রেখেছে( www.answering-christianity.com/x_rated.htm )তাছাড়া বাইবেলে মেয়েদের বিয়ের আগে যে পিতা তার মেয়েদের যোনীতে আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিত সেখানেও ইসলাম বিদ্বেষীদের কোন সমস্যা নেই ( http://www.answering-christianity.com/fathers_rape.htm )উপরে দেয়া তথ্য অনুসারে বাইবেলের ২টি পয়েণ্ট দেখা যায়।

 ১। পুরান টেস্টামেণ্ট অনুসারে ৩ বছর বয়সী ক্রীতদাসী মেয়েদের ধর্ষণ করা হতো

২।পিতা তার মেয়েকে ক্রীতদাসী হিসেবে বিক্রি করে দিতে পারত

 ২ নং পয়েণ্ট নিয়ে আলোচনা করার আগে একটি প্রশ্ন রাখতে চাই।“ইসরাঈলের ঈশ্বর কি শিশুলোভী/নারীলোভী?”

Numbers 31:35-40″[From the captives of war] 32,000 women who had never slept with a man…….of which the tribute for the LORD was 32 [among  them were virgin girls].”

অবশ্য বাইবেলের ঈশ্বরের ৩২ টা সতী নারীর ভাগ কথাটার অর্থ রূপক,অর্থাৎ মানে তো এ না বাইবেলের ঈশ্বর পৃথিবীতে নেমে ৩২টা সতী নারীর সাথে যৌনমিলন করবে।তবে কেউ যদি হযরত মুহাম্মদ (স) কে শিশুলোভী/নারীলোভী বলে আয়শা (র) কে বিয়ে করার জন্য যেখানে আয়শা(র) এর পিতা-মাতার কাছে বিষয়টি গ্রহণযোগ্য ছিল এবং বিভিন্ন দুস্থ নারীদের বিয়ে করার জন্য তার সমগ্র জীবনে যেখানে সবাই ছিল বৃদ্ধ বয়সের (আয়শা {র} ব্যতীত) তাহলে বাইবেলের নবী/রসূলদের তো নারীলোভী/শিশুলোভী বলবেনই সাথে ইসরাঈলের ঈশ্বরকেও নারীলোভী/শিশুলোভি বলতে হবে।আজকেও  ইহুদী আইন অনুসারে একজন মেয়ের সম্মতি/মিলন বয়স হলো ১১।

 ২।পিতা তার মেয়েকে ক্রীতদাসী হিসেবে বিক্রি করে দিতে পারত
Exodus 21:7-1

7. “If a man sells his daughter as a female slave, she is not to go free as the male slaves do.
 8. “If she is displeasing in the eyes of her master who designated her for himself, then he shall let her be redeemed. He does not have authority to sell her to a foreign people because of his unfairness to her.
 9. “If he designates her for his son [Note: “his son” means that the master is either her father’s age or even much older!], he shall deal with her according to the custom of daughters.
 10. “If he takes to himself another woman, he may not reduce her food, her clothing,or her conjugal rights.
 11. “If he will not do these three things for her, then she shall go out for nothing,without payment of money.

সবার প্রথমে,মেয়েদের কি কোনো ইচ্ছা/অনিচ্ছা দেখা হতো যে তারা তাদের পিতা কর্তৃক বিক্রি করা হবে কি না বা বিয়ে করবে তার মনিব কিংবা মনিবের পুত্রের সাথে? না!!এখানে একটা বিষয় লক্ষ্য করা উচিৎ যে মনিব চাইলে মেয়েটিকে বিয়ে করতে পারত বা নিজের পুত্রের সাথেও বিয়ে দিতে পারত।তাহলে বোঝা যায় মেয়েটি মনিবের তার মনিবের মেয়ের বয়সী এবং মনিবের ছেলের থেকেও ছোট। তাহলে সে মেয়েটির থেকে ৩০+ বছরের বড়।তাও,মনিব চাইলে(যেখানে মনিব মেয়েটির বাবার বয়সী কিংবা আরও বড়)মেয়েটিকে বিয়ে করতে পারে।এখানে আরও একটি বিষয় লক্ষণীয় যে,বাইবেলে কিন্তু বলা নেই বয়সের সীমার কথা যে কোন বয়সে একজন মেয়েকে বিয়ে/বেচে দেয়া যায়।তাও আবার সেখানে মেয়েটির সম্মতি নেই যে তার এতে ইচ্ছা আছে কি না।যেখানে মনিব এমনকি মনিবের পুত্র পর্যন্ত মেয়েটির থেকে বড় ঠিক যেমন বাইবেলের নবী/রসূল ১০০টির মত বউ থাকত।যেখানে ইসলাম বিদ্বেষীদের লেখার তালিকায় এ বিষয়ে একটা লেখাও পাবেন না।এ বিষয়ে বাইবেল থেকে কয়েকটা রেফারেন্স দিলাম নিচে।

In Exodus 21:10, a man can marry an infinite amount of women without any limits to how many he can marry.

 

 In 2 Samuel 5:13; 1 Chronicles 3:1-9, 14:3, King David had six wives and numerous concubines.

 

 In 1 Kings 11:3, King Solomon had 700 wives and 300 concubines.

 

 In 2 Chronicles 11:21, King Solomon’s son Rehoboam had 18 wives and 60 concubines.

তাছাড়া বিভিন্ন ইহুদী এবং রোমান ক্যাথলিক বিশ্বাস করে যে মরিয়ম (আ) এর বয়স ছিল ১১-১৪ যখন তিনি ঈসা(আ) কে জন্ম দিয়েছিলেন।তাছাড়া আমি আগেই বলেছি যে বাইবেলের নবী ১০০ এর মত বউ রাখত যাদের বেশিরভাগই ছিল কমবয়সী মেয়ে। আবার আয়শা (র) এর বাবা-মা সম্পর্কে কি বলবেন?তারা কি দেখি নি সেটা ঠিক ছিল নাকি কি ভুল যে তারা তাদের মেয়েকে সে সময় এবং সে বয়সে বিয়ে দিয়েছিল?আমরা কে এটা বিচার করার?

সুতরাং ইসলাম বিদ্বেষীদের কাছে আমার প্রশ্ন,”আপনি কি একজন ভন্ড নন?যেখানে বাইবেলে মেয়েদের যোনীতে পিতা আঙ্গুল ঢুকালে,৩ বছরের মেয়েকে ধর্ষণ করলে,মেয়েকে তার সম্মতি ছাড়া পিতা তাকে ক্রীতদাসী  হিসেবে বিক্রি করে দিলে,যত ইচ্ছা তত বিয়ে করার অনুমোদন আছে সেখানে আয়শা (র) কে নিয়েই শুধু আপনার লেখা কেন?যেখানে আয়শা (র)এর,সে সময়কার মুসলিমদের/অমুসলিমদের,সমগ্র বিশ্বে এমনকি আয়শা (র) এর মা-বাবারও সেখানে কোন আপত্তি ছিল না।কেন?বাইবেলের বিষয়গুলো কই?যেখানে গৌতম বুদ্ধ তার স্ত্রীকে ছেড়ে চলে গেছে,কৃষ্ণ রাধার সাথে সঙ্গম করে তাকে কখনো বিয়ে করে নি-এসব বিষয় নেই কেন? Why? !!!”

এর জবাব আপনি কীভাবে দিবেন?

যদি সত্যি এটা সে সময় অনুযায়ী কোন জঘন্য কাজ হতো তাহলে তো সেটা হাদিসেই আসত না।আপনার কি মনে হয়? কেউ অপরাধ করে সেই অপরাধটা সবার সামনে তুলে ধরবে? বরং সেটা আরও গোপনে রাখার চেষ্টা করবে। সুতরাং নবী (স) এর হাদিসে এটা কেন এল?এর দ্বারা এটা প্রমাণ করে যে সে সময়ের রীতি,রেওয়াজ,আইন,সমাজ অনুযায়ী এ বিয়েটা গ্রহণযোগ্য ছিল।।রসূল (স) আর আয়শা (র) এর বিয়ের পর হযরত আয়শা (র) এর জীবন কেমন কেটেছিল?কেউ বলতে পারবে? তিনি ইসলামের সর্বোচ্চ হাদিস বর্ণনাকারী হয়ে যান,ইসলামের বিষয়ে তিনি প্রচুর জ্ঞান অর্জন করেন। কেউ কেউ তো এমনও বলেন যে এই ক্ষেত্রে আয়শা(র) এর অবদান ছিল সর্বশ্রেষ্ঠ।তাঁর কাছে বিভিন্ন দেশ হতে নারী/পুরুষ শিক্ষা এবং জ্ঞান অর্জনের জন্য আসত। ইয়েমেন,বাহরাইন,সিরিয়াসহ আরও অনেক দেশ থেকে।আমার জানা নেই ইতিহাসে এমন নারী আর আছে কি না। যদি তিনি সত্যি অত্যাচারের শিকার হতেন তাহলে রসূল (স) এর মৃত্যুর পর তিনি তা প্রকাশ করে দিতেন।যেহেতু এতো মানুষ তার ভক্ত হয়ে গিয়েছিল তাই এটা তাঁর জন্য খুবই সহজ ছিল যে তাঁর অত্যাচারের বর্ণনা সকলকে জানিয়ে দিতে পারত।কিন্তু হযরত আয়শা(র) বর্ণনা করে গেছেন যে নবী (স) কতোই না মহৎ,উদার,দানবীর,সৎ,ন্যায়পরায়ণ,সত্যবাদী,দয়ালু ছিলেন।যদি তিনি আসলেই অত্যাচারের শিকার হতেন তাহলে তিনি খুব সহজেই ইসলামের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতে পারতেন।কোন যৌন নীপিড়িত মানুষ কখনো তার অত্যাচারির ব্যাপারে কোন ভালো মন্তব্য করে না। সে সময়ে মানুষ সাধারণত ৬০ বছরের বেশি বাঁচত না। এমনকি রোমানিয়াতে তো ৪০ বছর ছিল গর আয়ু।সে সময় ১ বছরের মধ্যে যদি কোন নারী গর্ভবতী হত না তাহলে তাকে তালাক দেয়া হতো(কতোই না বেদনাদায়ক)।তার মানে মেয়েদের সে সময় যখন বিয়ে হতো তখন তাদের ১/৩ জীবন পার হয়ে যেত।

 হযরত আয়শা (র) এর বিয়ে নিয়ে আলোচনা শেষ করার আগে আমার এ বিষয়ে কিছু প্রশ্ন,যুক্তি এবং পয়েণ্ট।

 ১।বাইবেলের নবী এমনকি রোমানের সম্রাটরা ৮ বছর বয়সী মেয়েদের বিয়ে করত।এ বিষয়ে আপনি কি বলবেন? ( www.answering-christianity.com/byzantine_child_brides.htm )

২। মরিয়ম (আ) ১১-১৪ বছর বয়সে গর্ভবতী হয়েছিলেন।এ বিষয়ে আপনি কি বলবেন?

৩। Joseph মরিয়ম(আ) কে ৯৯ বছরে বিয়ে করেছিলেন।এ বিষয়ে আপনি কি বলবেন?

৪।১৮৮০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের দেলাওয়ারে বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স ছিল ৭। এ বিষয়ে আপনি কি বলবেন?

৫।ইহুদীদের তালমুদ অনুযায়ী মূসা (আ) এবং তার অনুসারীরা ৩ বছর মেয়েকে ধর্ষণ করেছিল।এ বিষয়ে আপনি কি বলবেন? ( www.answering-christianity.com/age3.htm )

৬। থাইল্যান্ডে ৯ বছর বয়সী একটি মেয়ে গর্ভপাত করেছে এ  নিয়ে ছবি এবং সংবাদ এ বিষয়ে কি বলবেন? ( www.answering-christianity.com/thai_girl.htm )

৭। রোমেনিয়াতে একজন ১২ বছরের খ্রিষ্টান মেয়ের বিয়ে  এ নিয়ে আপনি কি বলবেন? ( www.answering-christianity.com/gypsy_girl.htm )

৮। আয়শা (র) এর মা-বাবা সম্পর্কে কি বলবেন?তারা কি নারীলোভী/শিশুলোভী ছিল?আপনার কি মনে হয়? তাদের এ বিষয়ে আপত্তি ছিল না কেন?যদি আয়শা (র) এর বিয়েটা অনৈতিক হত তবে কি আয়শা (র) এর বাবা-মা এই বিয়ে দিত? এ বিষয়ে আপনি কি বলবেন?

৯।সে সময়ের সমাজ,রীতি,রেওয়াজ,আইন এবং সকল ধর্ম,ধর্মালম্বী-ইহুদী,খ্রিষ্টান এমনকি ইসলামের শত্রু প্যাগানদের কাছেও বিষয়টা গ্রহণযোগ্য ছিল।কারণ সে সময় অনুযায়ী এ বিয়ে ছিল Common, Exception না

১০। বাইবেলের এক্স রেটেড  পর্ণগ্রাফি সম্পর্কে কি বলবেন? ( www.answering-christianity.com/x_rated.htm )

১১।বাইবেলের নবীদের বিয়ে সম্পর্কে কি বলবেন?

১২। ১৪০০ বছর আগে কেউ ৯ বছরের মেয়েকে বিয়ে করলে সমস্যা তবে ১৮৮০ সালে(মাত্র ১৩৫ বছর আগে) কেন বেশিরভাগ দেশে বিয়ের বয়স ১০ থাকা সত্ত্বেও সমস্যা নেই কেন? এ বিষয়ে কি বলবেন? সুতরাং ১৮৮০ সালে পৃথিবীর ৮০% + দেশ এবং সে দেশের মানুষ সম্পর্কে কি বলবেন? How do you respond to this? http://chnm.gmu.edu/cyh/primary– sources/24

১৩। ইসরাঈলের ঈশ্বরও কি নারীলোভী ছিলেন?

১৪। ৫৩ বছর আগে(১৯৬২ সালে) বিখ্যাত Sexologist R.E.L. Masters এবং Allan Edwardes তাদের একটি আফ্রো-এশিয়ান study তে বলেছিলেন “Today, in many parts of North Africa, Arabia, and India, girls are wedded and bedded between the ages of five and nine; and no self- respecting female remains unmarried beyond the age of puberty.”(_The Cradle of Erotica_, Julian Press, New York:1962)

১৫। বাইজাণ্টিনের সম্রাটদের জন্য ৮ বছর বয়সী বউ ছিল সাধারণ/স্বাভাবিক এবং সম্মানজনক ( www.answering-christianity.com/byzantine_child_brides.htm )

 ১৬।কৃষ্ণের ১৬০০০+ বউ ছিল।সে কি তার সব বউয়ের চাহিদা মিটাতে পেরেছে?তাহলে কি সে একজন অত্যাচারি হয় না?

১৭। গৌতম বুদ্ধ তার স্ত্রীর সাথে এতো অবিচার করল-তাকে ছেড়ে সন্ন্যাস গ্রহণ করল-এখানে কিসের মানবতা? নিজের বউকে ছেড়ে চলে যাওয়াই যদি মানবতা হয় তাহলে আমি বলব আমি একজন মানবতাহীন মানুষ এবং এর জন্য আমি গর্বিত।

 ১৮। হযরত মুহাম্মদ (স) কি আসলেই আয়শা (র) কে thigh করেছিল?Sam Shamoun এর নিজের Resource গুলোই বলছে সেগুলো অনেক সন্দেহজনক।তবুও আমাদের ওসামা ভাই তার অপবাদের জবাব দিয়েছেন www.answering-christianity.com/is_muhammad_true_prophet_3b.mp3

 ১৯। কিছু ঐতিহাসিক প্রমাণ বলছে বিয়ের সময় হযরত আয়শার বয়স ১৯ থেকে ২১ ছিল www.answering-christianity.com/aishahage.htm

 ২০। কৃষ্ণ রাধার সাথে সঙ্গম করল কিন্তু বিয়ে করল না কেন? Why?কোনো শিক্ষিত/সভ্য সমাজে কি এটা গ্রহণযোগ্য হয় বলে মনে করেন? এ বিষয়ে কি বলবেন?

২১ ।ধরুন আজ আপনি ২১ বছর বয়সে একটি ১৮ বছরের মেয়েকে বিয়ে করলেন।ঠিক ১০০০ বছর পর আইন হলো ছেলেদের বিয়ের বয়স ২৮ আর মেয়েদের ২৫।এখন কি ৩০১৫ সালের মানুষ আপনাকে বাল্য-বিবাহের আইন ভঙ্গ করেছেন এমন অভিযোগ করতে পারবে?কেন পারবে না?যদি না তাহলে আপনি কেন ১৫০০ বছর আগেকার এ বিয়ে নিয়ে চিল্লাচ্ছেন?

How do you respond to this?

বিঃদ্রঃ আমি একটা বিষয়ে পরিষ্কার করতে চাই যে আমি ঈসা(আ) এবং মূসা (আ) কে ভালোবাসি এবং আমি বিশ্বাস করি না যে বাইবেল ঈশ্বরের বাণী। সুতরাং বাইবেলের যে তথ্যগুলো দিলাম সে অনুসারে কিন্তু ঈসা(আ) এবং মূসা(আ) এর বিষয়গুলো একজন মুসলিম অনুযায়ী সম্পূর্ণ বানোয়াট।যেহেতু এটি একটি বিকৃত কিত্বাব।তাই এসব তথ্যের উপর আমি ঈমান আনি না। তবে যেকোনো অমুসলিমদের জন্য এ বিষয়গুলো মানতে বাধ্য।

১১ comments

Skip to comment form

  1. 8
    মজলুম

    এ ব্যাপারে গার্ডিয়ানে লেখা মরিয়মের আর্টিক্যালটা ও অসাধারন।   http://www.theguardian.com/commentisfree/belief/2012/sep/17/muhammad-aisha-truth

  2. 7
    সরকার সানজিদ আদভান

    সদালাপ কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ আমার লেখাটি যাচাই করার জন্য।আপনার মন্তব্যের কিছু অংশ নিয়ে আমার কিছু মত আছে।

    লেখার ফোকাস হবে প্রফেট মুহম্মদ (সঃ)- এর সাথে বিয়ের সময় আয়েশা (রাঃ)এর বয়স কত ছিল?

    লেখাটার মূল গুরুত্ব বয়সে হয়তবা আমি দিতে সক্ষম হই নি।কিন্তু এই বয়স নিয়েই লেখাতে বেশ আলোচনা করা হয়েছে বলে আমি মনে করি।এমনকি আমি আয়শার(র) বয়সও উল্লেখ করে দিয়েছি(১২ নং পয়েণ্ট)।

    ১৪০০ বছর আগে কেউ ৯ বছরের মেয়েকে বিয়ে করলে সমস্যা তবে ১৮৮০ সালে(মাত্র ১৩৫ বছর আগে) কেন বেশিরভাগ দেশে বিয়ের বয়স ১০ থাকা সত্ত্বেও সমস্যা নেই কেন?

    কিন্তু হ্যাঁ সেটাকে তেমন একটা বড় গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হিসেবে উপস্থাপন করি নি।আবার সূত্রও দেই নি।এখানে একটি বড় ভুল হয়েছে আমার।সে জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী।যাই হোক,আয়শা(র) নিজেই বলেছেন যে বিয়ের সময় তাঁর বয়স ৬ ছিল কিন্তু বৈবাহিক জীবন শুরু হয় ৯ বছরে।দেখুন Sahih Bukhari,5:58:234

    এবং সেসময়ে তাতে সামাজিক, আইনগত, বা ধর্মীয় বিধি-বিধান ভংগ হয়েছিল কিনা? সেটি আলোচনা করতে লেখক কি সব বলছেন সেটি বুঝতে পারছি না।

    এখানে কোন বিষয়টি বোধগম্য হচ্ছে না?

    •আয়শা (র) এর পিতা-মাতাই আয়শা (র) এর বিয়ে রসূল (স) এর সাথে দিয়েছিলেন। এবং কোনো মুসলিম কিংবা অমুসলিম কেউই এটার প্রতিবাদ করে নি কারণ সে সময় মেয়েদেরকে এ বয়সেই সাধারণত বিয়ে করা হত এবং এটা ছিল একটি স্বাভাবিক বিষয়।

    •আয়শা (র) এর বাবা-মা,এবং সে সময়ের সকল মানুষ এমনকি ইসলামের শত্রু প্যাগানদের কাছেও বিষয়টি গ্রহণযোগ্য ছিল।
    •৫৩ বছর আগে(১৯৬২ সালে) বিখ্যাত Sexologist R.E.L. Masters এবং Allan Edwardes তাদের একটি আফ্রো-এশিয়ান study তে বলেছিলেন “Today, in many parts of North Africa, Arabia, and India, girls are wedded and bedded between the ages of five and nine; and no self- respecting female remains unmarried beyond the age of puberty.”(_The Cradle of Erotica_, Julian Press, New York:1962)

    •১৫। বাইজাণ্টিনের সম্রাটদের জন্য ৮ বছর বয়সী বউ ছিল সাধারণ/স্বাভাবিক এবং সম্মানজনক ( http://www.answering-christianity.com/byzantine_child_brides.htm )

    আসলে এখানে আমার যে ভুলটা হয়েছে তা হলো এই বিষয়টি আমি লেখার বিভিন্ন অংশে আলাদাভাবে বুঝিয়েছি।দয়া করে 'ইরেলিভেন্ট ডিসকোর্স' এর English Term টা দিন।এই Term টা আমি বুঝতে পারি নি।

    পরস্পর বিরোধী উপলব্ধিও রয়েছে। যেমনঃ লেখক মুসা আঃ কে ভালোবাসেন, অথচ প্রচার করছেনঃ “ইহুদীদের তালমুদ অনুসারে মূসা (আ) এবং তার অনুসারীরা ৩ বছর  বয়সী মেয়েদের সাথে যৌনমিলন করেছিল”

    আমার মনে হয় আমি বিষয়টা আপনাকে বোঝাতে সক্ষম হই নি।একটু লক্ষ্য করুন।আমি রসূল মূসার(আ) প্রতি ভালোবাসা এবং তালমুদিক সূত্রে রসূল মূসার(আ) কথাগুলো কীভাবে বললাম

    ৪।ইহুদীদের তালমুদ অনুসারে মূসা (আ) এবং তার অনুসারীরা ৩ বছর  বয়সী মেয়েদের সাথে যৌনমিলন করেছিল।-জ্বি হ্যাঁ ঠিক পড়েছেন ৩ বছর বয়সী মেয়েদের সাথে তবে সেগুলো ইহুদীদের তালমুদ অনুসারে।

    বিঃদ্রঃ আমি একটা বিষয়ে পরিষ্কার করতে চাই যে আমি ঈসা(আ) এবং মূসা (আ) কে ভালোবাসি এবং আমি বিশ্বাস করি না যে বাইবেল ঈশ্বরের বাণী। সুতরাং বাইবেলের যে তথ্যগুলো দিলাম সে অনুসারে কিন্তু ঈসা(আ) এবং মূসা(আ) এর বিষয়গুলো একজন মুসলিম অনুযায়ী সম্পূর্ণ বানোয়াট।যেহেতু এটি একটি বিকৃত কিত্বাব।তাই এসব তথ্যের উপর আমি ঈমান আনি না। তবে যেকোনো অমুসলিমদের জন্য এ বিষয়গুলো মানতে বাধ্য।

    ইহুদীদের তালমুদ অনুসারে মূসা (আ) এবং তার অনুসারীরা ৩ বছর  বয়সী মেয়েদের সাথে যৌনমিলন করেছিল-এতবড় একটা কথা বলতে কোন রেফারেন্স লাগলো না!

    ৫।ইহুদীদের তালমুদ অনুযায়ী মূসা (আ) এবং তার অনুসারীরা ৩ বছর মেয়েকে ধর্ষণ করেছিল।এ বিষয়ে আপনি কি বলবেন? ( http://www.answering-christianity.com/age3.htm )

  3. 6

    ভাাল প্রচেষ্টা, মহান আল্লাহতায়ালা যেন আপনার এ উদ্যোগকে কবুল করেন।

    http://www.shodalap.org/

    1. 6.1
      সরকার সানজিদ আদভান

      ধন্যবাদ ভাই

  4. 5
    সদালাপ কর্তৃপক্ষ

    লেখার ফোকাস হবে প্রফেট মুহম্মদ (সঃ)- এর সাথে বিয়ের সময় আয়েশা (রাঃ)এর বয়স কত ছিল?   এবং সেসময়ে তাতে সামাজিক, আইনগত, বা ধর্মীয় বিধি-বিধান ভংগ হয়েছিল কিনা? সেটি আলোচনা করতে লেখক কি সব বলছেন সেটি বুঝতে পারছি না। লেখাটিতে ইরেলিভেন্ট ডিসকোর্স-এর প্রাচুর্যতা দেখা যাচ্ছে।পরস্পর বিরোধী উপলব্ধিও রয়েছে। যেমনঃ লেখক মুসা আঃ কে ভালোবাসেন, অথচ প্রচার করছেনঃ “ইহুদীদের তালমুদ অনুসারে মূসা (আ) এবং তার অনুসারীরা ৩ বছর  বয়সী মেয়েদের সাথে যৌনমিলন করেছিল”। -- এতবড় একটা কথা বলতে কোন রেফারেন্স লাগলো না! জাস্ট বলে দিলেন ইহুদিদের তালমুদে আছে। এক্সাক্ট ভার্সটা কি? কেউ যদি সেটা পড়তে চায় বা ভেরিফাই করতে চায় ঠিক কোন লোকেশনে খুঁজতে হবে? নাকি সমগ্র তালমুদ, স্ট্যান্ডার্ড প্রিন্টে প্রায় হাজার ছয়েক পৃষ্ঠা, পড়তে হবে? লেখক তালমুদের কোন ভার্সান থেকে এই তথ্য পেয়েছেন? মূল হিব্রু থেকে বলছেন নাকি কোন ট্রান্সলেশন ইউজ করেছেন? নিজে না পড়ে অন্য কোন সোর্স থেকে যদি সেটা নিয়ে থাকেন, তথ্যটি পূণঃপ্রচার করার পূর্বে সত্যতা নিরুপণে ডিউ ডিলিজেন্স করেছেন কি?

    সদালাপের এ বিষয়ে আগে অনেকগুলি লেখা প্রকাশিত হয়েচে যেমনঃ

    প্রসঙ্গ: মুহাম্মদ (সাঃ) ও আয়েশা (রাঃ)-র বিয়ে-- এস এম রায়হান

    পেডোফাইল!!! নবীর (সাঃ) প্রতি ইসলাম বিদ্বেষীদের মিথ্যাচার!!!-- মুনিম সিদ্দিকী

    সেগুলি কনসাল্ট করলে এবিষয়ে আর্গুমেন্ট পেশ করার ধরণ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যেত।

    উপরোক্ত আলোচনার আলোকে লেখাটির মেজর রিভিশন সাজেষ্ট করছি।(ততদিন পর্যন্ত লেখাটি ড্রাফট/পার্সনাল হিসেবে থাকতে পারে)। ধন্যবাদ।– সম্পাদক, সদালাপ।

       

  5. 4
    সত্য সন্ধানী

    এখানে তো বাইবেলের ইশ্বর আসলে পিতাকে দালাল আর মেয়েকে যৌনদাসী বানিয়ে রাখার বিধ্বন দিল! যে ধর্ম নিজের কন্যা সন্তান কে ব্রোথেলে বিক্রয় করার অনুমোদন দেয় সেই ধর্মের লোকেরা আবার আজ কিনা মানবতা মানবতা করে চিল্লিয়ে গলা ফাটায়। শয়তানের জাত সব।

  6. 3
    সত্য সন্ধানী

    সুন্দর লিখেছেন। অনেক তথ্য আগে জানা থাকলেও বাইবেলে যে পিতা কন্যাকে ক্রিতদাসী হিসাবে বিক্রি করতে পারে এটা জানা ছিল না,আপনার লেখার মাধ্যমে এটা জানলাম!খুব বিতৃষ্ণা  অনুভব করছি বাইবেল এর পুরাতন নিয়মের উপর। বিচারকদের বই তে তো ধর্ষন আর শিশু হত্যাকে বৈধতা দিয়েছে বাইবেলের ইর্ষাপরায়ন ইশ্বর; আর এখন একেবারে নিজের কন্যাকে ক্রীতদাসী হিসাবে বিক্রি করা? এটাতো শয়তানের কাজ!!

    খুব অবাক লাগে যে যখন খ্রিষ্টান রা কোমর বেধে ইসলাম কে বর্বর ধর্ম প্রমানের জন্য উঠে পড়ে লাগে আলী সিনার ওয়েব সাইটে তখন তারা বাইবেলের এইসব ভার্স এর কথা মনে করে না কেন! নাকি তারা এসব পড়েও দেখে না আল্লাহ জানেন! এখন যদি কোন ধর্মগুরু ইসরায়েলের ইশ্বরের বানী প্রচারের নামে কন্যা সন্তান দের ক্রীতদাসী হিসাবে বিক্রির বৈধতা ঘোষনা করে তবে সাধারন জনতা তো তাকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারবে।

     মুক্ত মনার নাস্তিক পরিচয় ধারী ভন্ডরাও এসব দেখেও না দেখার ভান করে আসলে নিজেদের পরিচয় নিজেরাই প্রকাশ করে দেয় যে এরা আসলে শুধুই ইসলাম বিদ্বেষী মুনাফেক। আবু জেহেল ও মনে হয় না এদের মত এত নীচুমনা ছিল।

    আল্লাহর লানত পড়ুক তাদের উপর যারা নবীজী সঃ  এর চরিত্র হননের হীন চেষ্টায় লিপ্ত!

  7. 2
    মাহফুজ

    ভাাল প্রচেষ্টা, মহান আল্লাহতায়ালা যেন আপনার এ উদ্যোগকে কবুল করেন।

    আপনার পোষ্টের সাথে আমার একটি লিংকও জুড়ে দিলাম। আশাকরি কিছু মনে করবেন না- হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) ও আয়শার (রা) বিয়ে

    1. 2.1
      সরকার সানজিদ আদভান

      @মাহফুজ:জাযাকাল্লাহ খায়ির

  8. 1
    Shahriar

    very well said and clear concept..

    jajak-allah

    1. 1.1
      সরকার সানজিদ আদভান

      পড়া এবং মন্তব্য করার জন্য ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.