«

»

Apr ১৬

ডারউইনের বিবর্তনবাদঃ কিছু পর্যবেক্ষণ-৫

[পর্ব-১][পর্ব-২][পর্ব-৩] [পর্ব-৪]

এবার দৃষ্টি দেয়া যাক ডারউইনবাদের গুরুর ‘ট্টি অব লাইফ’ এর দিকে। ডারউইন এর ট্রি অব লাইফ ভুল ও ভুলপথে চালিত করে এটা নিয়ে বিজ্ঞানমহলে আজ আর দ্বিধা নেই। তাদের মতে বিবর্তনবাদকে যেভাবে দেখা হয় তার চেয়ে অনেক জটিল। ফ্রান্সের পিয়েরি এবং ম্যারিকুরি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবর্তনবাদী বিজ্ঞানী ড: এরিক ব্যাপটিস্ট এর মতে:

For a long time the holy grail was to build a tree of life. We have no evidence at all that the tree of life is a reality.

এক্সেটার বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞানের দার্শনিক ড: জন ডুপ্রের কন্ঠেও যেন সেরকমই প্রতিধবনি পাওয়া যায়:

If there is a tree of life it’s a small irregular structure growing out of the web of life.

অতি সাম্প্রতিক গবেষণালব্ধ ফলাফল থেকে দেখা যায় প্রাণী ও গাছের বিবর্তন ‘ট্রি অব লাইফ’ এর মত নয়। ড: রসের উক্তি ডারউইনের এই ‘ট্রি অব লাইফ’ এর বিদায়ঘন্টারই প্রতিধ্বনি:

The tree of life is being politely buried – we all know that. What’s less accepted is our whole fundamental view of biology needs to change.

ভবিষ্যতে এরকম আরো অনেক জিনিষ ধীরে ধীরে বের হবার সম্ভাবনাটাই বেশী। বিবর্তনবাদী জীববিজ্ঞানী লিওনিড ক্রগলাইক এর কন্ঠে ধ্বনিত হয় বিবর্তনবাদের সীমাবদ্ধতার ব্যাপারে সরল স্বীকারোক্তি (vol 456, p18, Nov 2008 in Nature):

it’s a possibility that there’s something [about the contributions of genomic structure to the evolution of complex phenotypes] we just don’t fundamentally understand… That it’s so different from what we’re thinking about that we’re not thinking about it yet.

এছাড়া অনুজীববিজ্ঞানী ইউজিন কোনিন (vol 37, p1011, Nucleic Acids Research) বিবর্তনবাদের প্রধান চালিকাশক্তি প্রাকৃতিক নির্বাচনের ভূমিকাকে অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ (সাংখ্যিক বিচারে) বলে মনে করেন, এর গুরুত্ব আগে যতটুকু ধারণা করা হত তার চেয়ে অনেক অনেক কম:

Evolutionary-genomic studies show that natural selection is only one of the forces that shape genome evolution and is not quantitatively dominant, whereas non-adaptive processes are much more prominent than previously suspected.

নাসা এস্ট্রোবায়োলোজী ইস্টিটিউট এর গবেষক ড: জন বারোসস অন্য গ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব নিয়ে কাজ করছেন। তিনি মনে করেন ডারউইনের বিবর্তনবাদ প্রাণের উৎপত্তির ব্যাপারে এখনো অন্ধকারে:

…our understanding of how life began is incomplete, it seems clear that there are certain requirements.

অবশ্য প্রাণের ব্যাপারে প্রথাগত ধারণার বাইরেই ভাবছেন। পৃথিবীতে সকল প্রাণের জন্য যেমন পানি, কার্বনযুক্ত জৈব উপাদান এবং শক্তির উৎস (সৌর বা রাসায়নিক) দরকার, ভিনগ্রহের প্রাণীদের জন্য সেরকম অবস্হার প্রয়োজন নাও থাকতে। এটা অন্যভাবেও হতে পারে:

I’d like to point out there are many different ways for non-Earth-like life to not use light or chemical energy but use some other form like radiation energy, wave energy, or ultraviolet energy.

দেখা যাচ্ছে, ডারউইনবাদ সার্বজনীন না! বিবর্তনবাদের নামে যা বলা হচ্ছে বা ধারণা করা হচ্ছে সবকিছুকে বিনা যুক্তিতে মেনে নেয়াটা বিজ্ঞানের মৌলিক ধারণার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ না। যেমন মানুষ, বানর, ইঁদুর, গরিলা, গরু, গাধা একই একটা ‘সাধারণ পূর্বপুরুষ’ বা একই জেনেটিক উপাদান থেকে এসেছে বলা হয়, কিন্তু কোন্ ফ্যাক্টর এই জেনেটিক উপাদানকে পরিবর্তন করে বিভিন্ন ধরণের জীবণের বিকাশ ঘটাল তা ব্যাখ্যা করতে নিতান্তই অসহায়। এই অসহায়ত্বই বিবর্তনবাদকে ব্যাখ্যাতীত ও অসহনশীল করেছে। বিশিষ্ট জীববিজ্ঞানের প্রফেসর রেইস লিভারপুল বিশ্ববিদ্যালয়ে বৃটিশ বিজ্ঞান এসোশিয়েশনের সন্মেলনে বক্তৃতাকালে এই গোঁমড় ফাঁস করেছেন। তিনি উল্লেখ করতে ভুলেননি যে, যখন স্কুলে জীববিজ্ঞান পড়ানো হতো তখন বিবর্তন এর ব্যাপার এলে তিনি ‘কট্টরপন্হী’র ভুমিকায় অবতীর্ণ হতেন। ডারউইনবাদী বিজ্ঞানী হ্যারিসন ম্যাথিউ এর মতে , বিবর্তনবাদে বিশ্বাস ও স্পেশাল সৃষ্টি পরষ্পরের সমর্থক, তিনি উভয়ের ব্যাপারেই এখনই পুরোপুরি সিদ্ধান্তে আসতে অপরাগ:

belief in the theory of evolution is thus exactly parallel to the belief in special creation – both are concepts which believers know to be true but neither, up to the present has been capable of proof.

বিজ্ঞানের প্রতিষ্ঠিত তত্ত্বের দিকে দৃষ্টি দিলে দেখা যায় সেগুলোর বেশীরভাগের ক্ষেত্রে কালের আবর্তে তেমন একটা পরিবর্তন হয় না, কিন্তু গোল বাঁধে সদা পরিবর্তনশীল বিবর্তনবাদকে নিয়ে। হয়তো একদিন দেখা যাবে যে বিবর্তনবাদ পরিবর্তন হয়ে এমন একটা অবস্হায় আসবে যাকে অপব্যবহারের মাল-মসলাও আর থাকবে না। এই পরিবর্তনশীল বিবর্তনবাদকে জোর করে চাপানোটা নিতান্তই উদ্দেশ্যমূলক।

(চলবে……)

Leave a Reply

Your email address will not be published.