«

»

Apr ১৪

অভিজিৎ রায় একজন ছুপা নাস্তিক

মুক্তমনা নাস্তিকদের গুরুজীকে ইতোমধ্যে বিভিন্নভাবে ভণ্ড ও ডাহা মিথ্যুক প্রমাণ করা হয়েছে [এখানে, এখানে, ও এখানে দেখুন]। এবার তাদের গুরুজী যে আসলে নাস্তিকও না, তার পক্ষে অকাট্য প্রমাণ হাজির করা হচ্ছে। 'রাহাত খান' ছদ্মনামে মুক্তমনাদের গুরুজীর একটি মন্তব্য দেখুন [সূত্র]-

যার মনে এই ধরণের প্রশ্ন ও সংশয় থাকতে পারে, সে আর যা-ই হোক না কেন, কোনোভাবেই নাস্তিক হতে পারে না। প্রকৃতপক্ষে, এই প্রশ্নগুলো আমাদের। এগুলো ছাড়াও আমাদের কাছে আরো অনেক প্রশ্ন আছে।

পাঠক! ধরা যাক, কোনো এক কাল্টগুরু বছরের পর বছর ধরে জোর গলায় আস্তিকতা প্রচারের মাধ্যমে অনেক আস্তিক মুরিদ যুগিয়েছে। এমন এক পর্যায়ে এসে আস্তিকতার সত্যতা নিয়ে সেই গুরুর কিছু সংশয়পূর্ণ প্রশ্ন ফাঁস হয়ে গেল। এই অবস্থায় তার আস্তিক মুরিদদের অবস্থা কেমন হতে পারে ভেবে দেখুন! অনুরূপভাবে, মুক্তমনা নাস্তিকরা যাকে এতদিন ধরে 'নাস্তিক গুরুজী' হিসেবে জেনে এসেছে সেই নাস্তিক মুরিদদের এখন কী হবে! wp-monalisa icon

নোট: সদালাপে এই পোস্ট প্রকাশের পর-পরই আঃ মাহমুদকে ঘোল খাওয়ানো রাহাত মিয়া সেই যে চম্পট দিয়েছে, বেচারার আর কোনো খবরই পাওয়া গেল না!!!

১৯ comments

Skip to comment form

  1. 8
    ইমরান হাসান

    ডিইজম সমন্ধে তো দেখি মগাজিত দাদার বেসিক ধারনাই নাই। এটাকে এরকম ভাবে গোঁজামিল দিয়ে চালানোর চেষ্টা কেন করলেন সেটা আমার জানার বাইরে।

  2. 7
    সাদাত

    নিজের পোস্টে জেনেশুনে কাউকে রিভার্স খেলতে সুযোগ দিচ্ছেন কেন? সোজা কিক আউট করুন।

    1. 7.1
      এস. এম. রায়হান

      আমার পোস্টে কিছু প্রমাণ রেখে দেওয়ার জন্য তাকে কিছুদিন সুযোগ দিয়েছি। আর নয়। এখন থেকে সত্যিই কিক আউট করা হবে। ঐ সাম্প্রদায়িকমনা ভণ্ড মনা ব্লগে বলির পাঁঠা হওয়ার পর থেকে ডজন খানেক নিকে সদালাপ, আমু, আর নবযুগে ফুল-টাইম দূর্গন্ধযুক্ত লাদি ছড়াচ্ছে। ভণ্ডটা এমনকি তার ভণ্ডজিৎ গুরুর মতো রিভার্স খেলেও ইসলাম ও মুসলিমদেরকে হেয় করছে। মজার কাণ্ড হচ্ছে নবযুগে তার একটি পোস্টের রিভার্স শিরোনাম দেখে তাকে আমু ব্লগে একজন 'ছাগু' বলে চালিয়ে দিয়েছিল cheeky

  3. 6
    সাদাত

    আচ্ছা এক ভবের ঘূরে কত নাম নিয়ে এই সদালাপে খেলছে বলতে পারেন?
    মজার ব্যাপার হলো, ভিন্ন নিকে সে ভবঘুরেকে 'হারামজাদা' 'নিচু জাত' বলে গাল দিচ্ছে।
    তার ধারণা সবগুলোই ফেক নিক, গালি দিলে তো গায়ে লাগবে না।
    আমরা কিন্তু ধরে নিচ্ছি গালিগুলো নিকের পেছনের মানুষটার জন্য যুতসই।

    1. 6.1
      শাহবাজ নজরুল

      হিসেব রাখা কষ্টকর হয়ে গেছে -- দেখি কয়টা মনে আছে --

      ১। ভবঘুরে, ২। আব্দুল হক, ৩। বিদ্রোহী, ৪। কায়সার আহমেদ, ৫। ভোরের হাতছানি, ৬। ফকির বাবা, ৭। ধান্দাবাজ ৮। মুর্খ মানুষ ৯। রণবীর সিং ১০। আবুল কালাম … ইত্যাদি …
       

      আমরা কিন্তু ধরে নিচ্ছি গালিগুলো নিকের পেছনের মানুষটার জন্য যুতসই।

      তা আর বলতে -- এই এক ক্লাউন যে কত মজা দিল … আমি আশা করব ভ্যাগাবন্ড এভাবে আমাদের অনাবিল আনন্দ দিতেই থাকবে অনাদিকাল ধরে …
       

      1. 6.1.1
        মোঃ তাজুল ইসলাম

        বস্তাপচা… নামটিও ভাল হিট হইছে।

      2. 6.1.2
        এস. এম. রায়হান

        হিসেব রাখা কষ্টকর হয়ে গেছে — দেখি কয়টা মনে আছে --
        ১। ভবঘুরে, ২। আব্দুল হক, ৩। বিদ্রোহী, ৪। কায়সার আহমেদ, ৫। ভোরের হাতছানি, ৬। ফকির বাবা, ৭। ধান্দাবাজ ৮। মুর্খ মানুষ ৯। রণবীর সিং ১০। আবুল কালাম … ইত্যাদি …

        surprise মগাজিৎ রায়ের সুযোগ্য মুরিদ বলে কথা।

  4. 5
    নীরব সাক্ষী

    নাস্তিক গুরুজী কিন্তু হিন্দু রীতি অনুযায়ী সাত পাকে প্রথম বিয়ে করেছিলেন!  

    1. 5.1
      শাহবাজ নজরুল

      শোনা যায় প্রথম স্ত্রীর আত্মহত্যায় মৃত্যুর পরে শেষকৃত্যও সনাতম ধর্মধারা অনুসারেই হয়েছিল।
       

  5. 4
    ফকির বাবা

    মগাচিত অভিজিত নাকি একটা মুসলমান মেয়ে বিয়ে করেছে যার নাম হলো বন্যা আহমদ। আসেন এই হালারে মুসলমানি করাইয়া দেই। তাইলে যদি ব্যাটার শিক্ষা হয়।

    1. 4.1
      এস. এম. রায়হান

      বন্যা আহমদ কখনো মুসলিম (ইসলামে বিশ্বাসী) ছিল না। তার দাবি অনুযায়ী সে একেবারে শিশুকাল থেকেই নাস্তিক। বর্তমানে বাম দর্শনে বিশ্বাসী। আর কাউকে শিক্ষা দেওয়ার জন্য তাকে 'মুসলমানী' করানোর দরকার নাই। 'মুসলমানী' না করিয়েও শিক্ষা দেওয়া যায়।

      1. 4.1.1
        ফকির বাবা

        @এস. এম. রায়হান:

        আর সে জন্যই প্রচলিত কোরানে ধর্মের জন্য কি কি করতে হবে তাহা তিনি বলে গিয়েছেন।আর আপনাদের মত অতি মুসলমানেরা প্রচলিত কোরআন মানবো না হেতু রাসুল মারা যাওয়ার ৩০০ বছর পরে হাদিস আবিস্কার করেছেন।

        একেবারে ছোট কাল থেকে নাস্তিক হয় কেমনে ? আস্তিক হওয়া খুব সোজা , পাগল ছাগল মূর্খ যে কেউই আস্তিক হতে পারে। কিন্তু নাস্তিক হতে তো বহু পড়াশুনা করার দরকার। তাই শিশু কালেই কিভাবে একটা নারী নাস্তিক হয় ?
         

        1. 4.1.1.1
          এস. এম. রায়হান

          আমার নামে উপরে যে কথা কোট করেছেন সেটা কার কথা? সেটা এখানে কেনো? আপনি কি পাগল ছাগল মূর্খ?

          তাই শিশু কালেই কিভাবে একটা নারী নাস্তিক হয় ?

          এটা আপনাদের দিদির দাবি। তারেই জিগান।

    2. 4.2
      এস. এম. রায়হান

      @পাঠক,
       
      'ফকির বাবা'র রিভার্স মন্তব্য থেকে সাবধান। সে একজন ভণ্ড, মগাজিতের সহোদর। কিন্তু মুসলিম ভাণ করে মন্তব্যটা করা হয়েছে।

  6. 3
    এস. এম. রায়হান

    এই পোস্টের পর মুক্তমনাদের গুরুজী নিজেকে নাস্তিক দাবি করতে চাইলে তার মুরিদদের সামনে তাকে কান ধরে উঠবস করে 'তওবা' পড়তে হবে। শুধু তা-ই নয়, সেই সাথে 'রাহাত খান' এর প্রশ্নগুলোর জবাবও দিতে তবে। মজার ব্যাপার হচ্ছে মুসলিমরা এই ধরণের প্রশ্ন করলে সে দুনিয়ার বিগ্যান নিয়ে এসে এক্কেবারে চোখে আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিয়ে জবাব দেয়, অথচ 'রাহাত খান' এর প্রশ্নগুলোর কোনো জবাব দেয়নি! এমনকি উপরে তার এক ক্লাউনের মন্তব্যেরও কোনো জবাব দেওয়া হয়নি -- না স্বনামে না 'রাহাত খান' নামে! হাসতে হাসতে শেষ wp-monalisa icon তার অন্ধ মুরিদরা এই দিনের আলোর মতো ব্যাপারটাকেও ধরতে পারেনি! দেবতুল্য গুরুজী বলে কথা wp-monalisa icon

  7. 2
    আবদুল্লাহ সাঈদ খান

    ফিলোসফার অব সাইন্স কার্ল পপারের সুন্দর একটি কথা আছে:

    If a proposal or hypothesis cannot be tested in a way that could potentially falsify the proposal, then the proposer can offer any view without the possibility of its being contradicted. In that case, a proposal can offer any view without being disproved. (Benjamin Libet, Mind Time: The Temporal Factors in Consciousness; page: 3)

    এ হিসেবে 'ডেটারমিনিস্ট ম্যাটেরিয়ালিস্ট' মতবাদটি একটি 'বিশ্বাস ব্যাবস্থা' তথা একটি 'ধর্ম', নাস্তিকরা এই ডেটারমিনিস্ট ম্যাটেরিয়ালিস্ট ব্যবস্থার উপর 'বিশ্বাস' স্থাপন করে আল্লাহকে অস্বীকার করছে। লক্ষ্য করবেন, এদের সঙ্গে কথায় মাঝে মাঝে বিষয়টি পরিস্কার হয়ে উঠে। যেমন: এদেরকে ফান্ডামেন্টাল ফোর্সেস অব ইউনিভার্সের উৎস সম্পর্কে প্রশ্ন করলে বলবে তা এমনি এমনি উদ্ভব হয়েছে। তাদের এই উত্তরটি যেমন তারা পরীক্ষানিরীক্ষা দ্বারা প্রমাণ করতে পারবে না, তেমনি তাদের এই উত্তরটিকে ভুল প্রমাণও করা যাবে না। কারণ এটি একটি 'বিশ্বাস'।

    প্রশ্ন হল 'বিশ্বাস' হলে অসুবিধে কি? অসুবিধে আছে। মুসলিমরা বিশ্বাস করে এই ফোর্সগুলো আল্লাহ সৃষ্টি করেছেন এবং মুসলমানরা কখনও দাবী করেনি যে এটা পরীক্ষা করে প্রমাণ করা যাবে। বরং মুসলিমরা এটাই বলছে যে 'এই ফোর্সগুলো আল্লাহ সৃষ্টি করেছেন' এই কথাটায় 'বিশ্বাস' করাটাই ইসলামের দাবী। কিন্তু তথাকথিত নাস্তিকরা তাদের 'বিশ্বাস'কে একটি সাইন্টিফিক ডিসগাইজ দিতে চাচ্ছে। তারা তাদের 'বিশ্বাস'কে বৈধতা দিতে বিজ্ঞানকে অপব্যবহার করছে। তারা এমন ভাবে বিজ্ঞানের কথা বলছে যেন বিজ্ঞান তাদের এই বিশ্বাসকে বৈধতা দেয়। অথচ এক্সপেরিমেন্টালী তাদের এই 'বিশ্বাস'গুলোও প্রমাণযোগ্য নয়।  

    ঈশ্বরকে মেনে নেয়ার দাবীটি বিশ্বাসের। সুতরাং যাদের মেনে নেয়া প্রমাণের উপর নির্ভরশীল,

     কিন্তু কেউ যদি ঈশ্বরকে এখানে নিয়ে আসেন তবে তিনি তা প্রমাণ করুক

    তাদেরই বরং 'ঈশ্বর নেই' এটা প্রমাণ করা জরুরী। বিজ্ঞানের দাবী তারাই তুলছে।

    এই তথাকথিত নাস্তিকরা যে চরম পর্যায়ের অন্ধ বিশ্বাসী তার প্রমাণ বিভিন্ন ভাবে পাবেন। যেমন বিবর্তনের ব্যাপারে বলতে গিয়ে যদি বলেন যে 'অসংখ্য' মধ্যবর্তী প্রজাতির ফসিল কোথায়। তারা বলবে প্যালিয়েন্টলজী এখনও শুরুর পর্যায়ে ভবিষ্যতে আবিস্কার হবে। অথচ গত দেড়শ বছরে ২০০ মিলিয়নের উপর ফসিল আবিস্কৃত হয়েছে, যাতে একটিও মধ্যবর্তী প্রজাতি নেই। সুতরাং তাদের দাবীটি একটি অন্ধ বিশ্বাস। তারা বলবে মিউটেশনের মধ্য দিয়ে বিবর্তন হচ্ছে। অথচ অসংখ্য পরীক্ষাগারে কোটি কোটি মিউটেশনের ঘটনা ঘটানো হয়েছে, এখন পর্যন্ত একটি উদাহরণও নেই যে মিউটেশনের মাধ্যমে একটি ব্যাকটেরিয়া প্রজাতি আরেকটি ব্যাকটেরিয়া প্রজাতিতে পরিণত হয়েছে। এখানেও তাদের দাবিটি একটি অন্ধ বিশ্বাস।

    রেজওয়ান আহমেদের সাথে ফেসবুকে আমার একটি তর্ক হয়েছিল বিবর্তনবাদ নিয়ে, শেষ পর্যায়ে এসে তার মন্তব্যটি এরকম:

    Abdullah Saeed Khan: আপনি যতগুলো প্রানির নাম নিলেন, তাদের টিকে থাকার ইতিহাস খুজতে গেলে তো খবর আছে। আপনিয়েই বরং নিয়েন, তবে আমার কাছে মনে হচ্ছে "survival the fittest" নিয়ামকটাই হয়ত এদের টিকে থাকার কারণ। আর আমি যা দেখছি আপনি বিবর্তনের সমালোচনা করতেছেন কিন্তু refuse করতেছেন না। বিজ্ঞানের মুল মজা তো যোগ্য সমালচনায়। যাই হোক আজকে আলোচনা করে ভাল লাগল। ভাল থাকিয়েন।

    সুতরাং কাদের বিশ্বাসটি যে 'অন্ধবিশ্বাস' সেটি বুঝা যায়, অন্ধ বিশ্বাসের আরেকটি উদাহরণ দিয়ে শেষ করছি:

    In this philosophy (Determinist Materialist), observable matter is the only reality and everything, including thought, will, and feeling, can be explained only in terms of matter and the natural laws that govern matter. The eminent scientist Francis Crick (codiscoverer of the genetic molecular code) states this view elegantly (Crick and Koch, 1998): “You, your joys and your sorrows, your memories and your ambitions, your sense of personal identity and free will, are in fact no more than the behavior of a vast assembly of nerve cells and their associated molecules. As Lewis Carroll’s Alice might have phrased it: ‘You’re nothing but a pack of neurons (nerve cells).’” According to this determinist view, your awareness of yourself and the world around you is simply the by-product or epiphenomenon of neuronal activities, with no independent ability to affect or control neuronal activities.

    Is this position a “proven” scientific theory? I shall state, straight out, that this determinist materialist view is a “belief system”; it is not a scientific theory that has been verified by direct tests. It is true that scientific discoveries have increasingly produced powerful evidence for the ways in which mental abilities, and even the nature of one’s personality, are dependent on, and can be controlled by, specific structures and functions of the brain. However, the nonphysical nature of subjective awareness including the feelings of spirituality, creativity, conscious will, and imagination, is not describable or explainable directly by the physical evidence alone.

    (Benjamin Libet, Mind Time: The Temporal Factors in Consciousness; page: 4,5)

    1. 2.1
      শাহবাজ নজরুল

      আরেকটু যোগ করে পোস্ট আকারে দেয়া যায় কি?
       

      1. 2.1.1
        আবদুল্লাহ সাঈদ খান

        ইনশাআল্লাহ, চেষ্টা করব।

  8. 1
    এস. এম. রায়হান

    মজার ব্যাপার হচ্ছে মুক্তমনাদের 'নাস্তিক গুরুজী'র এক নাস্তিক ক্লাউন না জেনে (!) তার গুরুজীকে জ্ঞান দিচ্ছে! নিচে তার মন্তব্যটা দেখুন:
     
    সৈকত চৌধুরী এর জবাব:
    এপ্রিল ৯, ২০১০ at ২:০২ অপরাহ্ণ

    @রাহাত খান,

    আমার মতে এই কবির নীরবতা কিন্তু বাড়বে যদি ডীইস্টরাও পথিককে প্রশ্ন করে বসেন – মহাবিশ্ব শূন্য থেকে নিজে নিজেই তৈরি হয়েছে (কারণ ঈশ্বরের ধারণা বাদ দিলে তাই মানতে হবে, তাই না?) – এই বিশ্বাসটাকেই বা ‘সেফ জোনে’ রাখতে হবে কেন? আমরা তো দৈনন্দিন জীবনে দেখি না হঠাৎ করে শুন্য থেকে কিছু আবির্ভূত হতে (পথিক জানলে আমাদের জানাতে পারেন)। আর জড় পদার্থ থেকে জীবের উৎপত্তিও সরাসরি কোথাও দেখা যায় না।

    মহাবিশ্বের উৎপত্তি সম্পর্কে আমাদের জ্ঞান দিন দিন বাড়ছে। এই তো সেদিনই আমারা এ সম্পর্কে প্রায় কিছুই জানতাম না। আমরা যতটুকু জানি তা সম্পর্কে আমাদের বলা উচিৎ -’আমরা এতটুকু জানি’। এর বাইরে কেউ প্রশ্ন করলে স্পষ্ট জানিয়ে দেয়া উচিৎ যে ‘ আমি জানি না’। হ্যা, আমাকে যে সব কিছু জানতে হবে এ শর্ত কে দিলো? কিন্তু কেউ যদি ঈশ্বর কে এখানে নিয়ে আসেন তবে তিনি তা প্রমাণ করুক, প্রমাণিত কোনো কিছু মেনে নিতে তো আমাদের দ্বিধা থাকার কথা নয়।

    আপনি নিশ্চয় ‘আমি জানি না’ আর ‘ এর কারণ ঈশ্বর’ কথাদুটোর মধ্যকার পার্থক্য বুঝেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.