«

»

Aug ০৩

“বিবর্তনবাদ দ্যা মিরাক্যাল” নামের পেজটি গায়েব!

কোনো এক 'মুক্তমনা'রূপী ছুপা "বিবর্তনবাদ দ্যা মিরাক্যাল" নামে ফেসবুকে একটি পেজ খুলে সেখানে একদিকে মুক্তমনা ব্লগের বিবর্তনবাদের গাঁজাখুরী কল্পকাহিনী প্রচার করছিল, অন্যদিকে আবার ইসলাম ও মুসলিমদের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচারণা চালাচ্ছিল। আমি সেখানে কিছু প্রশ্ন ও মন্তব্য করে তার দাবিগুলোর পক্ষে প্রমাণ দিতে বলি। ওমা! প্রমাণ দেওয়া তো দূরে থাক, কয়েকদিন পর যেয়ে দেখি সেই পেজটাই গায়েব! সেই সাথে নিজেও! ধর্মান্ধরা পেজ গায়েব করবে, নিজেরা গায়েব হবে, তথাপি তাদের ভুল বা মিথ্যাচার স্বীকার করবে না। গুগল ক্যাশ থেকে উদ্ধার করা সেই পেজের কিছু পোস্টের স্ক্রীনশট নিচে দেওয়া হলো। পোস্টগুলো একটু মনোযোগ দিয়ে পড়লেই বিজ্ঞানের ঘাড়ে বন্দুক রেখে 'ধর্ম-বিরোধীতা'র আড়ালে তাদের ইসলাম ও মুসলিম বিরোধী লেঞ্জা সহজেই চেনা যাবে। নাস্তিকরূপী এই পেগ্যান ধর্মান্ধরা যে কোন্‌ স্বর্গে বাস করে, কে জানে!

bibortonbadthemiracle1

bibortonbadthemiracle2

bibortonbadthemiracle3

(একই পোস্টে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি – জামায়াত শিবির – বিবর্তনবাদ দিয়ে ধর্ম বাতিল – ধর্ম ও বিজ্ঞান সাংঘর্ষিক – বিজ্ঞান মনস্ক জাতি গড়ার শপথ! খুব খেয়াল কৈরা।)

bibortonbadthemiracle4

(লেঞ্জা লুকানো আসলেই খুব কঠিন কাজ)

bibortonbadthemiracle5

bibortonbadthemiracle6

bibortonbadthemiracle7

bibortonbadthemiracle8

bibortonbadthemiracle9

bibortonbadthemiracle11

bibortonbadthemiracle10

('মুক্তমনা'রূপী পেগ্যানরা তাদের ডকিন্স দেবতার 'অভ্রান্ত' বাণীগুলো যত্রতত্র প্রচার করে কাদেরকে শুনাচ্ছে?)

৫ comments

Skip to comment form

  1. 4
    এস. এম. রায়হান

    ভুল করে অন্য একটি পোস্টে করা কিংশুকের মন্তব্যটি এখানে পেস্ট করা হলো-

     

    কিংশুক

    আগস্ট ৩, ২০১৩ at ১০:১৪ অপরাহ্ন

    বিবর্তনবাদীদের চরম ভণ্ডামী, মিথ্যাচার তুলে ধরলেন। সত্য স্বীকার করলে তো তাদের ধর্ম যাবে, ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ হয়ে যাবে, মান ইজ্জত পাণ্ডিত্য নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। বিবর্তনবাদ সম্পর্কে অজ্ঞ মানুষকে এত বছর ধরে ধোঁকা দেয়ায় অনেক মানুষ বিচারও চাইতে পারেন। অতএব, জোরপূর্বক তাল গাছের মালিকানা ধরে রাখতে বিবর্তনবাদকে ধর্মের চাইতেও বেশী প্রশ্নের উর্ধে রাখা হয়, কেউ প্রশ্ন করলেই তাকে নানান ছল চাতুরী করে থামিয়ে দেয়া হয়, অহর্ণিশি বিবর্তনবাদের পক্ষে আজগুবি প্রচারণা চলতেই থাকে। বিবর্তনবাদ চরম সত্য বলে বিনা প্রমাণে মেনে নিলে জ্ঞানী, আর সত্যিকারেই যে বিবর্তনবাদের কোন প্রমাণ এত বছরে এত রকম ভাবে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে সর্বপ্রকারে জোড়াতালি দিয়েও পাওয়া যায় নাই অর্থাৎ ডারউইনের বিবর্তনবাদ ডারউইনের দেখানো পথে মিথ্যা হয়ে গেছে- এটাই প্রমাণিত সত্য তাহা আর কেউ স্বীকার করতেও রাজি না, কাউকে জানতে দিতেও রাজি না। তাদের যেহেতু অর্থ বিত্ত, ক্ষমতা আছে, মিথ্যা তত্ত্বকে প্রচার করলে টাকা পয়সা দেয়ার অনেক গোষ্ঠি আছে তাই যতদিন তাদের হাতে ক্ষমতা থাকবে ততদিন মিথ্যাই সত্য হিসাবে প্রচার পাবে।

    সত্যকে উদঘাটন করে বাংলাভাষী ব্লগারদের নিকট বিবর্তনবাদের আসল কাহিনী জানানোর এই প্রচেষ্টার জন্য অনেক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এক সময় ইসলাম বিদ্বেষী ডারউইনের বিবর্তনবাদের চ্যালারা যাদের বেশীর ভাগ না বুঝেই বস্ বলেছেন এজন্য বিবর্তনবাদ সত্য, ইসলামের সৃষ্টিতত্ত্বের বিরুদ্ধে এজন্য বিবর্তনবাদ সত্য হিসাবে বিশ্বাস ও প্রচার করতো। তারা উপহাস, মানসিক আঘাত, গালাগালি অনেক করেছে কিন্তু সত্যের সামনে টিকতে না পেরে এখন যারা মোটেই জানেনা সে ধরণের শিকার খুঁজছে। আপনার প্রচেষ্টা সফল হোক এই কামনা।

  2. 3
    আহমেদ শরীফ

    (একই পোস্টে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি – জামায়াত শিবির – বিবর্তনবাদ দিয়ে ধর্ম বাতিল -- ধর্ম ও বিজ্ঞান সাংঘর্ষিক – বিজ্ঞান-মনষ্ক জাতি গড়ার শপথ! খুব খেয়াল কৈরা।)

     

    বস্তাপচা পাঁচন বানানোর সেই একই পুরনো অনুপান, নতুন কিছু নেই। কোলকাতার বাবুরা আগে শুরু করেছে। সেই বঙ্কিমের আমল থেকেই তরুণসমাজ সনাতনধর্মকে ঝেড়ে ফেলতে মরিয়া হয়ে ওঠে। পাড়ায় পাড়ায় গঠন করে 'বিজ্ঞান সমিতি'। পাশাপাশি 'বামপন্থি' 'যুক্তিবাদি' 'দেশপ্রেমিক' 'মানবতাবাদি' হয়ে ওঠে, কালাপানি পার হয়ে জাত খুইয়ে 'আধুনিক' হয়ে ওঠার ধূম পড়ে যায়। নিজেদের বাপপিতেমোর ধর্মকে সর্বক্ষেত্রে বর্জন তাচ্ছিল্য সহকারে  প্রত্যাখ্যান পাশাপাশি সব ক্ষেত্রে পশ্চিমাদের অন্ধ অনুকরণ। মনেপ্রাণে তাদের একেকজন আজও 'মাইকেল মধুসূদন' হয়ে উঠতে চায় কিন্তু পারে না, মাইকেল নিজে সব বিসর্জন দিয়ে একূল ওকূল দুকূলই হারিয়ে যেমন না ঘরকা না ঘাটকা হয়েছিলেন _ তেমনি এরা নিজের আত্মপরিচয় তো খোয়ায়ই, ইংরেজও হতে পারে না। সংষ্কারের অভাবে পুরনো সেই লুপ থেকে আজো তারা বেরুতে পারে না।

  3. 2
    সরোয়ার

    অজ্ঞতার সুযোগে মুক্তমনারা অনেকদিন মনোপলি ব্যবসা করেছে। তা এখন বন্ধ হয়ে গেছে। তারা দৌড়ের উপর আছে…!

    1. 2.1
      শামস

      এতো আশাবাদী হওয়া ঠিক না। সময় পরিস্থিতি কিছুটা প্রতিকূলে আছে মনে হয়। তাদের প্রপাগান্ডা মেশিনের জ্বালানীতে আপাতত একটু ঘাটতি পড়ছে। তারাও যোদ্ধা, অশুভ যোদ্ধা। হঠাত করে তারা হারিয়ে যাবে এরকম ভাবার কারণ নাই।

  4. 1
    শামস

    ডরাইছে, দৌড়ানিতো ভালোই দিছেন!

     

Leave a Reply

Your email address will not be published.