«

»

Sep ২৩

প্রশ্ন ফাঁস আর না ফাঁস নিয়ে একটা ছোট্ট নোট

একবার এক ইমিগ্রন্ট গাইনীর ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম – বাংলাদেশের প্রায় সব মহিলাকেই সিজারিয়ান করে বাচ্চা জন্ম দিতে হয় – এর কারন কি? 

উত্তরে ভদ্রলোক বলেছিলেন – ভাই বুঝেনইতো, টাকা পয়সার এতো সহজ উপার্জনের পথ কে হেলায় হারায়!

বাংলাদেশের প্রায় সব পেশাজীবিরাই অনৈতিক ভাবে অর্থ উপার্জন করে – তার মধ্যে ডাক্তাররা সবচেয়ে অমানবিক ভাবে অর্থসম্পদের মালিক হয়। 

মেডিকেলের প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে দেখে সবাই গেলো গেলো বলে চিৎকার করছেন দেখে মজাই লাগছে। প্রশ্ন কিনে যারা ডাক্তার হবে – তারা বরঞ্চ অনেক ভাল –  অনৈতিকভাবে তাদের পেশা শুরু করেছে – সুতরাং তারা আর যাই হোক হিপোক্রেট হবে না। 

আর যারা গাইড বই মুখস্ত করে "মেধাবী" হিসাবে মেডিকেলে ভর্তি হবে – তারা পাঁচ বছর পরে সেই থোড় বড়ি খাড়া – খাড়া বড়ি থোরই হবে। রুগী ঘরে ঢুকার আগেই টেস্টের কাগজে টিক দিতে শুরু কবরে আর হাসপাতালে হলে মরার পরও লাইফসাপোর্ট লাগিয়ে বিল বাড়াবে। 

মোদ্দা কথা হলো – নৈতিকতা যেখানে বিসর্জিত – যে যাদের বাবা-মা প্রশ্ন কেনার টাকা দেয় আর যারা গাইডবই আর কোচিং সেন্টারে গিয়ে উত্তর মুখস্ত করে – তাদের প্রশ্ন ফাঁস আর প্রশ্ন গোপনের তফাৎ নেই।

 

 

১ comment

  1. 1
    সরকার সানজিদ আদভান

    ভাই,আমার মনে হয় কোচিং,প্রাইভেট পড়ানোকে প্রশ্ন ফাঁসের সাথে না মিলিয়ে সাজেশনের কথাটাই শুধু বলা উচিৎ।কারণ কোচিং,প্রাইভেটের মাধ্যমে দূর্বল শিক্ষার্থীরা নিজেদের সবল করে।আপনার কি মত? @আবু সাঈদ জিয়াউদ্দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.